২০১৯ বিশ্বকাপের আগে এই খেলোয়াড়দের বিশ্রামে পাঠাবে বিসিসিআই!

এখন আর অন্য কিছু নিয়ে নয়, গোটা ক্রিকেট বিশ্বের যাবতীয় মনোযোগ ও ভাবনাচিন্তা ২০১৯ ওডিআই বিশ্বকাপ কেন্দ্রীক। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের মাটিতে আগামী বছরের ৩০ মে থেকে শুরু হবে টুর্নামেন্ট। চলবে একেবারে জুন মাস পের করে জুলাইয়ের মাঝামাঝি পর্যন্ত। ১৪ জুলাই ফাইনাল ম্যাচ ক্রিকেটের মক্কা লর্ডসে খেলা হবে।

দ্বাদশ ওডিআই বিশ্বকাপে অংশ নিতে চলা দশটি দলই তাদের প্রস্তুতি প্রায় সেরে ফেলেছে। ২০১৯ বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম বড় দাবিদার টিম ইন্ডিয়া। ভারতীয় ক্রিকেট দলের ইংল্যান্ড সফরের আগে পর্যন্ত ক্রিকেট সমালোচক ও বিশেষজ্ঞরা বলে আসছিলেন, বিরাট কোহলির ভারতই বিশ্বকাপ জিতবে। কারণ, ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাম্প্রতিক পারফর্ম্যান্স সেই ইঙ্গিতই বহন করছে। ওডিআই এবং টেস্টের আসরে বিলেতের মাটিতে ব্যর্থ হলেও, ভারত টি-২০ সিরিজ জিতেছিল আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। তবে, ২০১৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ব্যর্থ হওয়ার ব্যাপারটাকেও মাথা রাখতে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টকে।

আগামী বছর ৫০ ওভারের আইসিসি বিশ্বকাপ যে সময় অনুষ্ঠিত হবে, তার আগে আগে আবার ভারতে আইপিএল মরশুম চলবে। গত এগারো বছর ধরে ওই সময়েই বিসিসিআই ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ করিয়ে আসছে। আর্থিকভাবে ফুলেফেঁপে ওঠা বিসিসিআই আইপিএল কখনই বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেবে না। তাই জন্য একাদশ আইপিএল মরশুম শেষ হওয়ার পর থেকে খবরটা চাওর হয়েছিল যে একাধিক তারকাকে বিশ্রাম দেওয়া হবে দ্বাদশ মরশুমে। আবার খেলতে দিলেও, পুরোটা খেলতে দেওয়া হবে না। আর সেই তালিকায় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং অস্থায়ী অধিনায়ক রোহিত শর্মার থাকাটা স্বাভাবিক।

আইপিএল ছাড়াও বিশ্বকাপে আগে ভারতীয় ক্রিকেট দলের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রীড়াসূচি রয়েছে ঠাসা। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট টিম এখন ভারত সফরে এসেছে। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শেষ হওয়ার পর ওডিআই এবং টি-২০ মিলিয়ে সীমিত ওভারের সিরিজ শেষ হবে ১১ নভেম্বর। তারপর অস্ট্রেলিয়ায় উড়ে যাবে টিম ইন্ডিয়া। সেখানে ২১ নভেম্বর থেকে সিরিজ শুরু। টি-২০ ফরম্যাট থেকে টেস্ট ক্রিকেটে মানিয়ে নেওয়ার পর ওডিআই সিরিজ দিয়ে সফর শেষ ১৮ জানুয়ারি। দেশে ফিরেই টিম ইন্ডিয়া ২৩ জানুয়ারি থেকে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতীয় নেমে পড়বে ওডিআই আসরে। পাঁচ ম্যাচের সিরিজ চলবে ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। তারপরই তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ অংশ নিয়ে ১০ তারিখ শেষ করার পর কিউয়িদের থেকে অজিদের দিকে আবার মন দিতে হবে ভারতকে। ২৪ ফেব্রুয়ারি ১৩ মার্চ পর্যন্ত পাঁচ ম্যাচে ওডিআই এবং দুই ম্যাচের টি-২০ সিরিজ রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে।

বিশ্বকাপের আগে টিম ইন্ডিয়ার যা ক্রীড়াসূচি রয়েছে এবং ক্রিকেটের মেগা ইভেন্ট যতদিন ধরে চলবে, তাতে ক্রিকেটারদের ক্নান্তি চলা আসা স্বাভাবিক। তার সঙ্গে চোটআঘাত বাড়ারও সম্ভাবনা থাকছে একনগাড়ে খেলে গেলে। ফলে, বিসিসিআই ঠিক করেছে, বেছে বেছে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বিশ্রাম দেওয়া হবে তারকাদের। এশিয়া কাপে নিয়মিত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ওডিআই এবং টি-২০ সিরিজে দুই তারকা ফাস্ট বোলার ভুবনেশ্বর কুমার এবং জসপ্রীত বুমরাহ’কে বিশ্রাম দেবেন নির্বাচকরা। বোর্ড সূত্রে জানানো হয়েছে, ”বিরাট কোহলিকে আবার বিশ্রামে পাঠানো হবে, যদি বিশ্বকাপের আগে ওকে ফিট রাখা নিশ্চিত করার প্রয়োজন হয়। এটা রোটেশন পলিসির অন্তর্গত। ২০১৯-এর জুনে অনুষ্ঠিত হতে চলা বিশ্বকাপের জন্য টিম সেরা কম্বিনেশনটা রাখতে চায়।”

এখানে উল্লেখ্য, ইংল্যান্ড সফর শেষ করে বিরাট বিশ্রাম নিয়েছিলেন। বোর্ড তাকে এশিয়া কাপে ছুটি দিলেও তিনি নিজে যেহেতু আপত্তি জানানি, তাতে তাঁর সমালোচনা হয়েছে প্রাক্তনদের মুখে। কারণ, পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচ ছিল। যাইহোক, বিরাটের অনুপস্থিতিতে অস্থায়ী ভারত অধিনায়ক সফলভাবে টিমকে নেতৃত্ব দেন এবং সপ্তমবার এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন করেন ভারতকে। রোটেশন পলিসি সবার জন্য সঠিকভাবে প্রযোজ্য হলে আগামী দিনে রোহিতকেও ছুটি দেওয়া হতে পারে দু-একটা ওডিআই সিরিজের জন্য। কারণ, অস্ট্রেলিয়া সফর বাদে ভারতের সামনে আর কোনও টেস্ট সিরিজ নেই। সবকটাই সীমিত ওভারের ক্রিকেট সিরিজ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: