ধোনির জীবনাদর্শ থেকে সবারই পাঁচটি বিষয় শেখার আছে সফল হতে গেলে

ছোটো শহরের একটি অজানা ছেলের তারকা খচিত উত্থানকে সুপারনোভার সঙ্গে তুলনা করা চলে। ভারতীয় ক্রিকেটকে কেন, বিশ্ব ক্রিকেটে মহেন্দ্র সিং ধোনি এক ব্যতিক্রমী চরিত্র। তাঁর ক্রিকেট কেরিয়ার বলুন, আর অধিনায়কত্বের ঘরানা – কোনওটার সঙ্গে অতীত দিনের বা বর্তমানের কোনও কিছুরই মিল পাবেন না। ধোনির হেলিক্পটার শট, চোখের পলক পড়ার আগেই স্টাম্পিং, অধিনায়ক থাকাকালীন ম্যাচ নির্ণায়ক সিদ্ধান্ত এবং সফলতার পরিসংখ্যান, সবই যেন কেমন একটা অবিশ্বাস্য ব্যাপার।

ঠিক যেন প্রহেলিকার মতো। কোনও অলিক কল্পনা বললেও যেন সঠিক ভাষা প্রয়োগ করাও নয় বর্ণনা করতে গিয়ে। এমএসডি’র বায়োপিক যখন সিলভার স্ক্রিনে আসে, তাও দু্র্দান্ত হিট হয়। রিটায়ারমেন্ট নেওয়ার আগে এমন সৌভাগ্য ক্রিকেট দেবতা শচীন তেন্ডুলকরেরও হয়নি। ধোনি তাই সবার থেকে আলাদা। এক অনন্য চরিত্র। লেজেন্ডারি ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব ধোনির জীবনের পাঁচটি শিক্ষণীয় ব্যাপার আছে, যা থেকে সবার কিছু না কিছু শেখা উচিত।

৫. সফলতা নেতার নয়, সফলতা টিমের

ভারত অধিনায়ক থাকাকালীন মহেন্দ্র সিং ধোনির যে ব্যাপারটি অন্যতম উল্লেখযোগ্য দিক, তা হলে দেশকে ট্রফি এনে দেওয়ার পর লাইমলাইট শুঁষে নেওয়ার জন্য কখনই ছবিতে থাকতেন না ধোনি। নিজের কাজটা করে দেওয়ার পর তরুণ ক্রিকেটারদের সেই জয়ের আনন্দটা উপভো করতে দিতেন। যোগ্য ও দক্ষনেতা তিনিই যিনি নিজের কাজটা সঠিক সময়ে সঠিকভাবে করতে জানেন এবং কৃতিত্ব টিমকে দিতে জানেন। কারণ, একজন নেতাকে সফল হতে গেলে সতীর্থদের ভালোবাসা ও সমর্থন সবার আগে প্রয়োজন। আর তার চেয়ে বড় ব্যাপার হলো, সফলতা এতে মাথাতে চেপেও বসে না। কারণ, জীবনের প্রতিটি লড়াইয়ে মানুষ শূন্য থেকে শুরু করে শিখরে পৌঁছায়।

৪. নিজের ভূমিকাটা ঠিকমতো পালন করা

ধোনি যখন ভারতীয় ক্রিকেটে আসেন, সে সময় টিমে বড়বড় নাম বিদ্যমান। শচীন তেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলি, রাহুল দ্রাবিড়, বীরেন্দ্র সেহওয়াগ, যুবরাজ সিং, ভিভিএস লক্ষ্মণ, অনিল কুম্বলে – সবই বড়বড় নাম। সেইসব তারকাদের মাঝে নিজের কেরিয়ার গড়ে তোলেন। টপ অর্ডারে ওপরের দিকে যখন ব্যাট করতে পাঠানো হলো, তখন তিনি নিজের ভূমিকাটা ঠিকমতো পালন করেন। আবার যখন তাঁকে প্রয়োজনে ম্যাচ ফিনিশার হতে হলো, তখনও তিনি চুপচাপ নিজের ভূমিকাটা পালন করে যান ভারতীয় ক্রিকেটের স্বার্থে। ব্যক্তিগত রেকর্ড নয়, টিমের কল্যাণই সবার আগে। তেমন আমরা যেখানে কাজ করি, সেই সংস্থার উন্নয়নই আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত। ধোনির ভূমিকা বর্তমান ভারতীয় দলে মেন্টরের মতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: