কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব বনাম চেন্নাই সুপার কিংস: পাঞ্জাবকে প্লেঅফ থেকে বের করে দিয়ে বড় মন্তব্য ধোনির!

গতকাল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের লেগ পর্যায়ের শেষ ম্যাচে পুণের এমসিএ স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছিল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব এবং চেন্নাই সুপার কিংস। এই ম্যাচে টসে জিতে চেন্নাই অধিনায়ক ধোনি প্রথমে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন। ব্যাট করতে নেমে নিজেদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে পাঞ্জাব সেই অর্থে ভাল পারফর্মেন্স করতে পারে নি। চেন্নাই সুপার কিংসের দুই জোরে বোলার লুঙ্গি এনগিডি এবং দীপক চহেরের সামনে তারা অসহায় আত্মসমর্পন করে ফেলেন।

শেষ দিকে করুণ নায়ারের হাফসেঞ্চুরি ইনিংসের সহায়তায় তারা নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৫৩ রানই তুলতে পারে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে জোরে বোলারদের সহায়ক পিচে সমস্যায় পড়ে চেন্নাইও। এই ম্যাচে তারা শেন ওয়াটসনকে বিশ্রাম দিয়েছিল। ফলে তার জায়গায় ওপেন করতে নামেন ফাফ দুপ্লেসি এবং আম্বাতি রায়ডু। কিন্তু দ্বিতীয় ওভারেই আম্বাতি রায়ডুকে ফিরিয়ে দেন মোহিত শর্মা, এবং তার পর ফাফ দুপ্লেসিও বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেন নি। এরপর সুরেশ রায়নার সঙ্গে দলের ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান হরভজন সিং। কিন্তু তাকেও তুলে নেন অধিনায়ক অশ্বিন।

এরপর দীপক চহেরকে সঙ্গে করে ইনিংস গড়ার কাজ শুরু করেন সুরেশ রায়না। এই দুজনে মিলে চেন্নাইয়ের ইনিংসকে বিপদ সীমার বাইরে নিয়ে যান। শেষ দিকে ধোনি এবং রায়না মিলে চেন্নাইকে পাঁচ উইকেটে জয় এনে দেন।

মহেন্দ্র সিং ধোনি—সিএসকে অধিনায়ক

যদি আপনি বোলিং ক্রমকে দেখেন তাহলে এটা খানিকটা সুইং করছিল। এই ধরনের ম্যাচে যেখানে বল প্রচুর সুইং করে সেখানে আপনি উইকেট নিতে চাইবেন। আমরা এই কারণে ভাজ্জি আর চহেরকে পাঠিয়েছিলাম। কারণ আমরা জানতাম যে ওরা নীচের দিকের ব্যাটসম্যানদের জন্য বাউন্সার আর আউট কাটার্স দিতে চেষ্টা করবে। ওদের সুইং বোলিং হবে না। সব ফিল্ডার উপর দিকে ছিল, তাই আমি বড় শটের জন্য পাঠিয়েছিলাম। আমাদের কাছে লোকের এমন গ্রুপ আছে যারা ক্রিকেটারদের খুব কাছের। এইভাবে এটা অধিনায়কের জন্য সহজ হয়ে যায়। সেই সঙ্গে আমাদের দল ভীষণই ভাল। প্রথম এডিশনের সঙ্গেই আমরা ক্রিকেটারদের রেখেছিলাম, এবং ওরা প্রদশর্ন করেছে অশ্বিন, বেলিঞ্জার, মোহিত। সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল দু বছর ধরে যে খেলোয়াড়রা আপনার সঙ্গে নেই তাদের একজুট করা।

আমরা এই ধরনের প্রক্রিয়াকে সঠিক মনে করি। কারণ এর থেকে ওরা আপনাকে পরিনাম এনে দেবে। আমার ফাইনাল ম্যাচ মনে আছে, যেখানে কিছু ভুল হয়েছিল। আপনার যেখানে ভুল হয়েছিল তাকে স্মরণ করার প্রয়োজন রয়েছে। আপনি নিশ্চিত দিনে নিজের সেরাটা দেন, কারণে যে কেউই জিততে চায়।

রবিচন্দ্রন অশ্বিন—কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব অধিনায়ক

আমার মনে হয় আজকের দিনটা খারাপ ছিল। আমরা ভাল ব্যাটিং করতে পারি নি। পাওয়ার প্লেতে আমরা উইকেট হারিয়েছি। আমরা ক্যাচও মিস করেছি। যে কারণে আমদের হারের মুখ দেখতে হয়েছে। করুণ ভাল ব্যাটিং করেছে, কিন্তু আমাদের ৩০ রান কম ছিল। আমরা শুরুটা ভাল করেছিলাম। কিন্তু শেষটা আমাদের যথেষ্ট খারাপ হয়েছে। আমাদের কাছে অঙ্কিতের মত বোলার ছিল, যে বলকে সুইং করাতে পারে। কিন্তু ক্যাচ ছাড়ার জন্য আমরা এই ম্যাচ হেরে গেলাম। আমাদের জন্য মোহালিতেও রাহুল এবং গেইল অনেক রান করেছিল। এই মরশুমে রাহুল দারুণ খেলেছে। অঙ্কিতও ভাল খেলেছে। অন্যদিকে টাইও পার্পল ক্যাপ দখল করেছে। কিন্তু তখনও ফলাফল আমাদের পক্ষে ছিল না। আমার মনে হয় আরসিবির বিরুদ্ধে হারের কারণেই আমরা অনেকটাই পেছনে চলে গেছিলাম। টিমের সংস্কৃতিই তাকে আগে চ্যাম্পিয়ন বানায়। আমার আশা যে আগামি মরশুমে আমরা ভাল কিছু করব।

লুঙ্গি এনগিডি—ম্যান অফ দ্য ম্যাচ

এই দিনটা ভীষণই ভাল ছিল। বাস্তবে আমার এত ভাল প্রদর্শনের আশা ছিল না। আমি ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হব এই আশাও ছিল না। সাধারণভাবে সকলেই বলেন, যে উপমহাদেশে বল স্লো এবং নীচে থাকে, কিন্তু চহেরকে দেখার পর আমি ভীষণই খুশি হয়েছিলাম। এটা এমন একটা দল যারা বাস্তবে পরিবারের মূল্যকে মানে। ধোনির কাছে তো এক ক্রিকেট মস্তিস্ক রয়েছে এর থেকে অনেক সাহায্য পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: