গম্ভীরকে নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন শাহরুখ, যা বললেন সেটাই কি চিঁড়ে ভিজবে!

একটা সময় পারফরম্যান্সের বিচারে কলকাতা নাইট রাইডার্স ছিল আইপিএলের বাকি সব ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর মধ্যে শেষের দিক থেকে প্রথমে থাকা দল। দিল্লি থেকে গৌতম গম্ভীর কলকাতায় এসে নাইট রাইডার্সের ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে ছিলেন। সে সব বড় কোনও তারকা ছাড়াই গৌতম গম্ভীর কেকেআর-কে দু দুবার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন। কিন্তু এরপরেও চলতি বছর গম্ভীরকে ছেড়ে দেয় নাইট রাইডার্স। রিটেন বা আরটিএম কার্ড- দুটোতেই গম্ভীরে ঘাড় ঘুরিয়েছিল কলকাতা। কিন্তু কেন! গম্ভীরে অনিহা কেন দেখিয়েছিল নাইট রাইডার্স। য়েখানে মাত্র ২ কোটি ৮০ লক্ষ টাকায় দিল্লি ছিনিয়ে নিয়ে গেল গম্ভীরকে।

ক দিন আগে নাইট রাইডার্সের সিইও ভেঙ্কি মাইসোর জানিয়েছিলেন, গম্ভীর নাকি নিজে তাদের জানিয়ে ছিলেন তিনি আগামী মরসুম থেকে কেকেআরে খেলতে চান না। ভেঙ্কি জানিয়ে ছিলেন, গম্ভীর নিজেই নাইট রাইডার্স ছাড়তে চেয়েছিলেন!‌ কেন?‌ ভেঙ্কি মাইসোরের কথায়, ”গম্ভীর আমাদের পরিকল্পনায় ছিল। ওর কথা আমরা ভেবেও রেখেছিলাম। কিন্তু কিছুদিন আগে গৌতম আমাদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসে। আর সেখানেই জানায় যে ও নতুন কোনও চ্যালেঞ্জ নিতে চায়। আমরা জানি না, সেই চ্যালেঞ্জটা কী। গম্ভীর একটা বিষয়ে অনুরোধ করেছে, আমরা সেটা তো ফিরিয়ে দিতে পারি না?‌ আর কারও উন্নতির পথ রুদ্ধ করার ইচ্ছেও আমাদের নেই। সাত বছরের একটা সম্পর্ক। সেটা শেষ হয়ে গেলে খারাপ তো লাগেই।”‌

তবে গম্ভীরকে আনার পিছনে যার সবচেয়ে বড় হাত ছিল সেই শাহরুখ খান এই ইস্যুতে পুরো চুপ ছিলেন। তবে অবশেষে নাইট রাইডার্সের মহাতারকা মালিক কিং খান মুখ খুললেন। শাহরুখ বললেন, গম্ভীরকে আমরা মিস করব।

প্রসঙ্গত, ২০১১ আইপিএলের নিলামে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস থেকে ১১ কোটি টাকায় গম্ভীরকে চিনিয়ে নিয়েছিল নাইট রাইডার্সের। সেবারের আইপিএল নিলামে গম্ভীরের দরই সবচেয়ে বেশি উঠেছিল। গম্ভীর বলেছিলেন, ‘নাইট রাইডার্সে আমি অনেক ভালো মুহূর্ত কাটিয়েছি। কেকেআরকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে যা যা করণীয় সেটাই করেছি। ভবিষ্যতে যদি কখনও দল পরিবর্তন করতে হয়, সুখের স্মৃতিগুলো নিয়েই বিদায় নেব। পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে দল পাল্টানোটা ভুলের কিছু না। খেলার ক্ষুধাই সবসময় মোটিভেট করে আমাকে। আমি একজন ক্রিকেটার, আমি খেলতে চাই।’

২০১৮ আইপিএল, কলকাতা নাইট রাইডার্স স্কোয়াড:

১. আন্দ্রে রাসেল

ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান অলরাউন্ডারটিকে রিটেইনশন পলিসি মেনে বিদেশি কোটায় আগেই দলে রেখে দেওয়া হয়েছে। গত বছর ডোপ টেস্টে পজিটিভ রেজাল্ট আসায় খেলতে পারেননি ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারটি। নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেয হয়ে যাওয়ায়, এবার রাসেলকে খেলাতে কোনও সমস্যা নেই। সাত কোটি টাকা দিয়ে তাঁকে রেখে দিয়েছে কেকেআর।

২. সুনীল নারিন

রাসেলের সঙ্গে নারিনকেও কলকাতা রিটেইনশন পলিসিতে রেখে দিচ্ছে এবার। ক্যারিবিয়ান মিস্ট্রি স্পিনারের জন্য সাড়ে আট কোটি টাকা খরচ করছে কলকাতা।

৩. মিচেল স্টার্ক

চোটের কারণে ২০১৭ সালে আইপিএল মিস করেছেন স্টার্ক। এবার অস্ট্রেলিয়ান তারকাটিকে ৯ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা খরচ করে কিনল কেকেআর।

৪. ক্রিস লিন

বিদেশি কোটা আগে থেকেই শেষ হয়ে যাওয়ায় অস্ট্রেলিয়ান টি-২০ স্পেশালিস্ট তারকা ক্রিকেটারটিকে নতুন করে আবার কিনল কেকেআর। খরচ হচ্ছে ৯ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা।

৫. দিনেশ কার্তিক

তামিলনাড়ুর উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যানটি এবার কেকেআরের হয়ে খেলবেন। সাত কোটি ৪০ লক্ষ টাকা খরচ হচ্ছে তাঁর জন্য।

৬. রবিন উথাপ্পা

কলকাতা নাইটরাইডার্সে হয়ে খেলা কর্নাটকের মারকুটে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যানটিকে ছেড়ে দিয়েও আবার ফিরিয়ে এনেছে কলকাতা। আরটিএম কোটা প্রয়োগ করে ৬ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা দিয়ে তুলে আনা হলো উথাপ্পাকে।

৭. পীযূষ চাওলা

২টি ক্রিকেটারকে রিটেইন করায় কেকেআরের হাতে তিনটি আরটিএম কোটা ছিল। তা প্রয়োগ করে লেগস্পিনার চাওলাকে ৪ কোটি ২০ লাখ টাকা খরচ করে টিমে ফেরত আনা হলো।

৮. কুলদীপ যাদব

ভারতীয় দলের তরুণ প্রতিভামান চায়নাম্যান স্পিনারটিকেও টিমে ফিরিয়ে আনল কেকেআর। আরটিএম কোটা প্রয়োগ করে কুলদীপকে দলে ফেরানোয় ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকা খরচ হবে কলকাতার।

৯. শুভমন গিল

ভারতীয় অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ১৮ বছরের তারকা ক্রিকেটারটিকে কেকেআর ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা খরচ করে কিনল।

১০. ইশাঙ্ক জাগ্গি

ঝাড়খণ্ডের ক্রিকেটারটিকে নাইট রাইডার্স ২০ লাখ টাকা বেস প্রাইসেই কিনেছে। অতিরিক্ত কোনও অর্থ খরচ করতে হয়নি।

১১. কমলেশ নাগারকোটি

রাজস্থানের এই ফাস্ট বোলারটি এবার অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে সাড়া ফেলে দিয়েছেন। নাগারকোটিকে দলে আনতে ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা খরচ করছে কেকেআর।

১২. নীতিশ রানা

দিল্লির ক্রিকেটারটিকে এবার ছেড়ে দিয়েছে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। অভিজ্ঞ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নীতিশের জন্য কলকাতা খরচ করছে ৩ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা

১৩. মিচেল জনসন 

অস্ট্রেলিয়ার বাঁহাতি পেস বোলার মিচেল জনসনকে ২ কোটি টাকা খরচ করে ২০১৮ মরশুমের জন্য কিনে নিল কেকেআর। অকশনের প্রথম দিন অবিক্রিত ছিলেন তিনি। ২০১৭ সালে আইপিএলে অংশ নেননি। ২০১৬ সালে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে খেলেন।

১৪. শিবম পঙ্কজ মাভি


উত্তর প্রদেশের ক্রিকেটার শিবম মাভি এবার কেকেআরের হয়ে খেলতে নামবেন। অলরাউন্ডার মাভির জন্য তিন কোটি টাকা খরচ হচ্ছে।

১৫. রঙ্গনাথ বিনয় কুমার


ভারতীয় দলে একসময় খেলা পেস বোলারটিকে আবার কলকাতা টিমে দেখা যাবে। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স এবার কর্নাটকের বোলারটিকে ছেড়ে দেওয়ায় তাঁকে ১ কোটি ভারতীয় মুদ্রা খরচ করে কিনে নিল কেকেআর। ২০১৪ সালে কেকেআর স্কোয়াডে ছিলেন বিনয়।

১৬. অপূর্ব বিজয় ওয়াংখাড়ে


বিদর্ভের ক্রিকেটারটিরকে ২০ লাখ টাকা খরচ করে দলে আনল কেকেআর। রঞ্জি ক্রিকেটে ভালো ব্যাটসম্যান হিসেবে সুনাম রয়েছে।

১৭. রিঙ্কু সিং

উত্তর প্রদেশের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান রিঙ্কু সিং’য়ের জন্য কলকতা আশি লাখ টাকা খরচ করছে।

১৭. ক্যামেরন ডেলপোর্ট


দক্ষিণ আফ্রিকার আনক্যাপড অলরাউন্ডার ডেলপোর্টকে কলকাতা নাইটরাইডার্স ৩০ লাখ ভারতীয় মুদ্রা খরচ করে দলে আনল। এবারই প্রথম আইপিএল খেলবেন ডারবানের ক্রিকেটারটি।

১৮. জাভন সেয়ারলেস 

ওয়েস্ট ইন্ডিজের কে ২০ লক্ষ টাকায় শেষ লগ্নে কিনে সবাইকে চমক দিলো কলকাতা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: