হ্যাঁ, আইপিএলে এরাও খেলেছেন, নামগুলো শুনলে ভিরমি খেয়ে যাবেন

সচিন তেন্ডুলকর থেকে শেন ওয়ার্ন। অ্যাডাম গিলক্রিস্ট থেকে জাক কালিস। আইপিএলে বিভিন্ন সময়ে দেশ বিদেশের মহাতারকা ক্রিকেটার খেলেছেন। মন জিতেছেন, কাপ জিতেছেন। কিন্তু এমনও বেশ কিছু ক্রিকেটার আইপিএলে খেলেছেন, যাদের নাম শুনলে ভিরমি খেয়ে যাবেন। দেখুন আইপিএলের সেই সব অবতারদের–

৫) তেজস্বী যাদব (লালুপ্রসাদ যাদবের ছেলে)-

Tejaswi Yadav (Lalu Prasad Yadav’s son Tejaswi Yadav *** Local Caption *** Tejaswi Yadav (Lalu Prasad Yadav’s son Tejaswi Yadav ) Express Photo By Amit Mehra 28 March 2012

হ্যাঁ, লালু-র ছেলেও আইপিএলে খেলেছেন। ২০০৮ সালে লালুপ্রসাদের ছেলে তেজস্বী যাদবকে দলে নিয়েছিল দিল্লি ডেয়ারডেভিলস। যে দলে ছিলেন বিরাট কোহলি, অধিনায়ক ছিলেন বীরেন্দ্র সেওয়াগ। বিদেশী তারকা খেলোয়াড় লালুর ছেলের দলে ছিলেন এবি ডেভিলিয়ার্স, গ্লেন ম্যাকগ্রা। তা সেই তেজস্বীকে দিল্লি ডেয়ারডেভিলস টাকা দিয়েছিল, না নিয়েছিল তা জানা যায়নি। তেজস্বী জীবনে একটাই প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলেন। তাতে বল, ব্যাট দুটোই করেছিলেন। ব্যাট হাতে দুটো ইনিংস মিলিয়ে করেছিলেন ২০ রান আর বল হাতে শূন্য উইকেট। লালু-র বকা খেয়ে তেজস্বী খেলা ছেড়ে রাজনীতিতে যোগ দেন এবং পরবর্তীকালে নীতীশ কুমারের ক্যাবিনেটে উপমুখ্যমন্ত্রী হন।
রঞ্জি ট্রফিতে প্রতিনিধিত্ব করেছেন ঝাড়খণ্ডের। আইপিএলে চার মরসুম ধরে ‘দিল্লি ডেয়ারডেভিলস’-এর রোস্টারে ছিলেন। মাঠে নামা হয়নি যদিও। তবু দলে থাকার সুবাদেই নাকি পেয়েছিলেন ৩ কোটি টাকা।

তবে ব্যর্থ ক্রিকেটার হলে হবে কী, আইপিএলে কিন্তু এক লাস্যময়ী মহিলার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবি তুলে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন তেজস্বী। সেই মহিলার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবি নিয়ে তেজস্বী পরে বলেছিলেন, তেজস্বী বলেন, তিনি যখন ক্রিকেট খেলতেন সেই ২০১০ সালের কোনও সময়ে আইপিএল পার্টিতে ওই ছবি তোলা হয়েছে। ওই মহিলাকে তিনি চেনেন না বলে দাবি করেছেন তেজস্বী।

৪) জয়দেব শাহ (নিরঞ্জন শাহের ছেলে)

বাবা নামজাদা ক্রিকেট কর্মকর্তা। বিসিসিআইয়ের সর্বোচ্চ পদগুলোর সঙ্গে নানাভাবে জড়িত। সেই সুবাদে জয়দেব খেলেছিলেন আইপিএলে। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে যার স্ট্রাইক রেট মাত্র ৫৭, তিনিই কিনা খেলে ফেললেন রাজস্থান রয়্যালসে। সেখানে একেবারে চূড়ান্ত ফ্লপ।

৩) রঞ্জন মোদী (ললিত মোদীর ভাইপো)

প্রথম আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসের দলে রঞ্জন মোদী-র নামটা দেখে সবাই অবাক। কী ব্যাপার এই নামে কোনও খেলোয়াড় তো নেই। খোঁজ নিয়ে দেখা যায় রঞ্জন মোদী হল রাজস্থান রয়্যালসের এক ক্রিকেট অ্যাকাডেমির ছাত্র, সম্পর্কে যিনি ললিত মোদীর ভাইপো। তবে পরে বিতর্ক হওয়ায় রাজস্থান রয়্যালস জানায় রঞ্জনকে নেট বোলার হিসেবে দলে নেওয়া হয়েছিল, খেলোয়াড় হিসেবে নয়। আইপিএলের সেই সময়ের সর্বেসর্বা ললিত মোদীর ভাইপো রঞ্জন সেই সুবাদে প্র্যাকটিশের সুযোগ পান শেন ওয়ার্ন , শেন ওয়াটসনদের সঙ্গে। পরে অবশ্য রঞ্জন কোনও পর্যায়েই ক্রিকেট খেলতে পারেননি।

২) আকাশ চোপড়া
ওপেনার হিসেবে দেশের হয়ে ১০টা টেস্ট খেলেছেন। সেওয়াগের সঙ্গে ওপেন করেছেন। এত ঠুকঠুক করেছেন যে তাঁকে নিয়ে ঠাট্টা হত। ১০টা টেস্ট খেলে তাঁর স্ট্রাইক রেট মাত্র ৩৪। কোনও ওয়ানডে খেলার সুযোগই পাননি। পাবেনই বা কি রে , যিনি টেস্টেই কোনও দিন ওভার বাউন্ডারির ধারাকাছে যেতে পারেননি, যত বল খেলেছেন, তার থেকে বেশি বল ছেড়েছেন। সেই আকাশকে দলে নিয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। হ্যাঁ, আকাশ পুরো ফ্লপ। আইপিএলেও একেবারে খেলতে পারেননি।

১) সরভেশ কুমার
প্রথম আইপিএলে সরভেশ কুমারের অন্ধ্রপ্রদেশের এক ক্রিকেটারকে দলে নেয় ডেকান চার্জার্স। সরবেশ বল কেন না ব্যাট সেটা না জেনেই শুধু খেলোয়াড় কম পড়ছে বলে তাঁকে দলে নিয়ে নিয়েছিল ডেকান। অনুশীলনে দেখা যায় সরভেশ একটা বলও ব্যাটে ঠেকাতে পারছেন, আবার বলও করতে পারেন না। পাঁচটা সহজ ক্যাচ দিলে তিনটে ধরতে পারেন, দুটো মিস করেন। সেই সরভেশ কুমার আইপিএলে ডেকান দলে ছিলেন। কী করে এমন হয়েছিল কেউ জানে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: