নিয়ম ভঙ্গ করার জন্য এই ক্রিকেটারকে ‘শো-কজ’ করলো বোর্ড!

সঞ্জু স্যামসন ভারতের সেই ক্রিকেটারদের মধ্যে একজন, যাকে প্রতিভাবান তরুণ প্লেয়ার হিসেবে ধরা হয়। প্রসঙ্গত সঞ্জু স্যামসন ভারতীয় দলে নিজের জায়গা বানিয়ে নিয়েছেন। তিনি ভারতের হয়ে একটি টি২০ ম্যাচও খেলেছেন। এই মুহুর্তে কেরল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (কেসিএ) সঙ্গ যুক্ত একটি বড় খবর সামনে আসছে। কেসিএ সঞ্জু স্যামসন সহ নিজেদের ১৩জন খেলোয়াড়দের শো-কজ নোটিশ জারি করেছে।

সঞ্জু স্যামসনসহ মোট ১৩ জন খেলোয়াড়কে কেরালার অধিনায়ক শচীন বেবির বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা এবং তার বিরুদ্ধে বোর্ডের কাছে নালিশ করার জন্য এই নোটিশ জারি করা হয়েছে। আসলে টাইম অফ ইন্ডিয়ার একটি রিপোর্ট অনুযায়ী কেরালার খেলোয়াড়রা শচীন বেবির অধিনায়কত্ব নিয়ে খুশি নন এবং সকলেই অধিনায়ক শচীন বেবির উপর প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও এই অবস্থায় বোর্ডকে নিজের দলের অধিনায়ক শচীন বেবির পাশেই দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে। বোর্ড দাবী করেছে যে এই নালিশ মিথ্যে দাবির উপর আধারিত ছিল আর এটা টিম স্পিরিটকে খারাপ করার একটা প্রয়াস।

যে কারণে সমস্ত প্লেয়ারদের বিরুদ্ধেই নোটিশ জারি করা হয়েছে। দ্য হিন্দুর একটি রিপোর্ট অনুযায়ী কেরালা দলের খেলোয়াড়রা শচীনের অধিনায়কত্ব ক্ষমতা নিয়ে বোর্ডকে একটি চিঠি লিখেছিল, তারা অভিযোগ করেছিল যে শচীন স্বার্থপর এবং অহংকারী। ওই খেলোয়াড়রা শচীন বেবিকে দল থেকে বরখাস্ত করার অনুরোধও করেছিল।

এই অভিযোগের পর কেসিএর একটি কমিটি তদন্ত করে। ওই কমিটি খেলোয়াড়দের তাদের অভিযোগের ব্যাপারে প্রশ্ন করেছিল। যদিও কমিটি এটা পায় যে শচীনের উপর থাকা অভিযোগ ভিত্তিহীন, কিছু সিনিয়র প্লেয়ার শচীনকে অধিনায়কত্ব থেকে সরানোর প্রয়াস করছিলেন আর তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছিলেন। কেসিবির সচিব শ্রীজিত বি নর নিজের একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, “ আমরা সমস্ত খেলোয়াড়দের সঙ্গে দেখা করেছি আর পেয়েচি যে তথাকথিত অভিযোগের কোনও আধার নেই। খেলোয়াড়দের যদি শচীনকে নিয়ে কোনও অভিযোগ থাকত তাহলে তাদের উচিত ছিল টিম ম্যানেজমেন্টকে জানানো।

এটা ওদের অভিযোগকে দূর করার জন্য একটি উপযুক্ত মঞ্চ ছিল। খেলোয়াড়দের এমন অনুশাসনহীনতা বরদাস্ত করা যেতে পারে না। আমাদের মনে হয় যে অভিযোগ পত্রে সই করার জন্য বেশ কিছু সিনিয়র প্লেয়ার জুনিয়রদের বাধ্য করেছিল। আমরা এই কার্যকারিতার উপর সিদ্ধান্ত নেব”। এর মধ্যেই কেসিএ বেশি কিছু সিনিয়র প্লেয়ার যেমন সঞ্জু স্যামসন, মোহম্মদ আজহারউদ্দিন, অক্ষয় কেসি, আর সলমন নিজারকে আরও একটি আলাদা নোটিশ জারি করেছে। জুলাইতে ব্যাঙ্গালুরুতে কেএসসিএ টুর্ণামেন্টের সময় এই চারজন খেলোয়াড় বিনা অনুমতিতে গায়েব হয়ে গিয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: