সেঞ্চুরি করে ম্যাচ জিতিয়ে কোহলি যা বললেন, শুনলে আপনি হাততালি দিয়ে উঠবেন

ওয়ানডে সিরিজে দারুণ শুরু ভারতের। অধিনায়ক বিরাট কোহলির দুরন্ত সেঞ্চুরিতে ভর করে ডারবানে ৬ উইকেটে জিতল ভারত। ঘরের মাঠে টানা ১৭টা ম্যাচ জয়ের পর অবশেষে হারল দক্ষিণ আফ্রিকা। বিরাট কোহলি করলেন ৩৩ তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি, দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রথম সেঞ্চুরি।

আজ সিরিজের প্রথম ম্যাচে দু’জন রিস্ট স্পিনারকে খেলানোর সিদ্ধান্ত নেন কোহলি৷ কুলদীপ যাদব ও যুবেন্দ্র চাহালের সঙ্গে পার্টটাইম অফ-স্পিনারের ভূমিকা নেবেন কেদার যাদব৷ ভুবনেশ্বর কুমারে সঙ্গে নতুন বলে দৌড় শুরু করবেন জসপ্রীত বুমরাহ৷ তৃতীয় পেসারের দায়িত্ব পালন করবেন অল-রাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়া৷ অজিঙ্কা রাহানেকে চার নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে দলে রেখেছেন বিরাট৷

দেখুন ম্যাচের পর কে কী বলেন–
বিরাট কোহলি (ম্যান অফ দি ম্যাচ ও ভারত অধিনায়ক)- হ্যাঁ, আজকের ইনিংসটা সত্যি স্পেশাল ছিল। জোহানেসবার্গের আত্মবিশ্বাসটা আমরা এখানে নিয়ে এসেছিলাম, সেটা কাজে দিয়েছে। আমরা ভাল পার্টনারশিপ করতে চেয়েছিলাম। জিঙ্কস (রাহানে) যেভাবে খেলে রান পেল তাতে দারুণ খুশি। চেজ করার একটা সুবিধা হল, পরিকল্পনা করে ছক কষে ব্যাটিং করা যায়। রান তাড়া করাটা আমি উপভোগ করি। কারণ তাতে খেলাটাকে নিয়ে আরও হিসেব, আরও বুঝতে হয়, আরও চ্যালেঞ্জ নেওয়া যায়। এর আগে আমি কখনও দক্ষিণ আফ্রিকায় সেঞ্চুরি করিনি। এই জন্যই আজকের সেলিব্রেশনটা একটু অন্যরকম করলাম। হ্যাঁ, ফিল্ডিংয়ের সময় যে চোটটা পেয়েছিলাম তাতে আমার হাঁটুতে চোট ছিল। হাল্কা বৃষ্টিতে আউটফিল্ডটা আজকে বেশ ভেজা ছিল। এটা খুব বিপজ্জনক। এমন মাঠে খুব চোট লাগে। বড় সিরিজে খেলতে গেলে শুরুতেই চোট পেয়ে কেউ ছিটকে গেলে বড় ক্ষতি হয়। তবে এখন আমি একদম ঠিক আছি। ভূবি (ভূবনেশ্বর কুমার) আর জশপ্রীত বুমরার ওপর ভরসা করেছিলাম, সেটা আবার করে দেখিয়েছি। দু জন্য রিস্ট স্পিনার, চাহাল-কুলদীপও দারুণ করল, আসল ফারাকটা ওরাই গড়ে দিল। আমি জানতাম ওরা পারবে। সিরিজের শুরুতে এই পারফরম্যান্সটা ওদের মনোবল বাড়াবে। দলের পক্ষে এমন দুজন সাহসী ইয়ংস্টার থাকাটা সবসময় ভাল। জিঙ্কস (রাহানে)-এর ব্যাটিং টেকনিক সত্যি ভাল। অন্য প্রান্ত থেকে ওর ব্যাটিং দেখতে ভাল লাগে। ও খুব পজেটিভ মানসিকতায় ব্যাট করল। আমার কাজটা অনেকটা সহজ করে দিল ও। হ্যাটস অফ ওকে, ও দুরন্ত খেলল। আশা করি সিরিজে আমরা এভাবেই ভাল খেলে যাবো।


ফাফ দু প্লেসিস (দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক)- প্রথমেই বলব, অসাধারণ ব্যাটিং করল কোহলি। তবে এটা ঠিক আমরা একেবারেই ভাল ব্যাটিং করতে পারিনি। এই পিচে আরও অন্তত ৫০-৬০ রান করতে হত আমাদের। পরিবেশ, পিচের দিক থেকে শুরুতে ব্যাটসম্যানদের কাজটা একটু কঠিন ছিল। ম্যাচটা যত এগিয়েছে ব্যাটিংয়ের কাজটা সহজ হয়েছে। ভারতের মত এত ভাল ব্যাটিং লাইনআপের জন্য আমাদের আরও বড় রান করতে হত। আমি সব রকমভাবে চেষ্টা করেছি। ফিল্ডিং পরিবর্তন, বোলার পরিবর্তন, নানারকম ট্যাকটিক্স, কিন্তু বিরাট-রাহানে সত্যি দারুণ ব্যাটিং করে আমাদের সব পরিকল্পনা ভেস্তে দিল। বিশেষ কিছুই করার থাকে না এত ভাল খেললে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: