কলকাতার বিশেষ ঐতিহ্য, যা আর কোথাও পাবেন না…

কল্লোলিনী তিলোত্তমা। আধুনিক বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো শহরগুলির মধ্যে একটি। উত্তর থেকে মধ্য, আর মধ্য থেকে দক্ষিণ – শহরটার যেদিকের চোখ রাখবেন, আশ্চর্য হয়ে যাবেন। আধুনিকতা আর বনেদিয়ানার কি দুষ্প্রাপ্য সংমিশ্রণ। সেই কবে জব চার্নক তিনটি গ্রাম  – সুতানুটি গোবিন্দপুর আর কলকাতা নিয়ে কলকাতানগরীর পত্তন করেছিলেন। কালের নিয়মে মহানগরী আজ ঐতিহ্যমণ্ডীত, বিশ্ববন্দিত শহর। ভারতের সবচেয়ে পুরনো এই শহরের নাম বিশ্ব আঙিনায় অতি পরিচিত। ভারতে কোনও বিদেশি এলে কলকাতাতে আসবেনই। করণ, এই শহরে এমন কিছু দর্শনীয় স্থান বা জিনিস আছে, যা আর কোথাও নেই। আর থাকলেও, কলকাতার সবকিছুই যেন ইতিহাসের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়, যেটা আর কোথাও পাওয়া যাবে না।

 

১৩. স্ট্রিট ফুড

ডালহাউসির অফিস পাড়া, ডেকার্স লেন, পার্ক স্ট্রিট – এই তিনটি রাস্তায় সারাসারি খাবারের দোকান দেখতে পাবেন সারি সারি। সস্তায় অথচ পুষ্টিকর খাবার পৃথিবীর আর কোথাও পাবে না। এর ঐতিহ্য শতাব্দী প্রাচীন।

 

১২. রসগোল্লা

কলকাতায় এলে রসগোল্লা খোঁজা চাই। সারা বিশ্বে কলকাতার রসগোল্লা বিখ্যাত। তবে, শীতকালে নলেন গুড়ের তৈরি রসগোল্লা এখমাত্র এখানেই পাবেন, আর কোথাও না।

 

১১. মেট্রো রেল

কলকাতার গর্ব। ভারতের মধ্যে এই কলকাতাতেই প্রথম পাতাল রেলের সূচনা। এখন অবশ্য ভারতের রাজধানী সহ আর অনেক শহরে মেট্রো চলছে বা উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে, তবে, কলকাতা মেট্রোর জনক এদেশে। এখানে এলে মেট্রোতে উঠতে হবেই।

 

১০. ইডেন গার্ডেন

ক্রিকেট স্বর্গোদ্যানে খেলার স্বপ্ন সব ক্রিকেটার দেখেন। ক্রিকেটের মক্কা লর্ডসের চেয়ে কোনও অংশে কম বিখ্যাত নয় কলকাতার ইডেন গার্ডেন। এতো বড় ক্রিকেট মাঠ আর কোথাও নেই। এক সময় একলাখ দর্শক ধরত এই স্টেডিয়ামে। আবার সবরকমের খেলার স্টেডিয়াম তালিকায় আয়তনের দিক থেকে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম স্টেডিয়াম ইডেন।

 

৯. আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

বছরের শেষ দিকে শীতের শুরুটা চলচ্চিত্র উৎসব দিয়ে করা অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে এই শহরের। বিদেশ থেকেও বহু সিনেমাপ্রেমী এইসময় ভিড় জমান কলকাতায় এসে।

 

৮. বোটানিক্যাল গার্ডেন

হাওড়ার শিবপুরে অবস্থিত হলেও, কলকাতার সঙ্গেই এর নাম জড়িত। এখানে পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো বটগাছের দেখা পাবেন। পাঁচশো বছরেরও বেশি পুরনো এই গাছের আসল গোড়া কোনটি কেউ জানে না।

 

৭. আলিপুর চিডিয়াখানা

যখনই আসবেন, কোনও না কোনও নতুন জীবের দেখা মিলবে এখানে। বিশ্বাস না হলে নিজেই একবার দেখে আসুন। ভারতের মধ্যে সবচেয়ে বড় কলকাতার এই অবশ্য দর্শনীয় চিডিয়াখানাটি।

 

৬. ন্যাশনাল লাইব্রেরি

ব্রিটিশ ভারতে তৈরি আরও একট ঐতিহাসিক নির্দশন। বহু পুরনো বইয়েরও সন্ধান মিলবে এখানে এলে। ভূত পাওয়া যায় কি না, জানা নেই, তব নিরিবিলিতে নিশ্চিন্তে যে কোনও বই পড়তে চাইলে এই ন্যাশনাল লাইব্রেরি এখনও অনবদ্য। আর সস্তায় ক্যান্টিনের খাবার খিদে পেলে, যা আর কোথাও পাবেন না।

 

৫. কলেজ স্ট্রিট

কলকাতার বইপাড়া বিশ্ববিখ্যাত। যে বই কোথাও পাবেন না, তা এখানে পাবেন। আর যা এখানে পাবেন না, আর কোথাও পাবেন না। এমন একটা কথা প্রচলিত আছে।

 

৪. আন্তর্জাতিক বইমেলা

কলকাতা বইমেলা। বলা হয়, এমন বইমেলা নাকি আর কোথাও হয় না। বইয়ের এমন বৈচিত্রময় সমাহার একমাত্র এই ঐতিহাসিক শহরেই চোখে পড়ে। নিয়ম করে গত আটত্রিশ বছর ধরে এটাএ চলে আসছে। ময়দান থেকে মিলন মেলা পাড়ি দিয়ে সেন্ট্রাল পার্ক, যেখানেই আয়োজিত হোক না কেন, প্রত্যেক বছর শীতের শেষে বইমেলাতে বিদেশিরাও ভিড় জমান এসে।

 

৩. হাতে টানা রিক্সা

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

কালের নিয়মে এটাও আজ অচল। বিশ্বের আর কোথাও পাওয়া যাবে না, একমাত্র এই কলকাতাতেই দর্শন মিলবে হাতে টানা রিক্সার। আইন করে বারবার একে তুলে দেওয়ার চেষ্টা হলেও, এখন কত মানুষকে রুজি-রুটি দেয় ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নেওয়া এই রিক্সা।

 

২. ট্রাম

লন্ডন আর কলকাতা ছাড়া আর কোথাও পাবেন না ব্রিটিশদের এই ঐতিহ্য। আজও এই শহরের বুকে রাস্তার ওপর শুয়ে থাকে ট্রাম লাইন। কতবার ট্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া তার ছিঁড়ে পড়ে যান-জটের সৃষ্টি হয়েছে, তবুও এই শহর তার ঐতিহ্যকে ছাড়তে চায় না।

১. হাওড়া ব্রিজ

ব্রিটিশ ভারতে তৈরি এই ব্রিজ পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো ব্রিজ কোনও নদীর ওপর। হাওয়া ও কলকাতা জেলাকে যুক্ত করা এই ব্রিজ এক সময় দু’ভাগে মাঝখান থেকে ভাগ হয়ে যেত বড় বড় জাহাজ ও লঞ্চকে রাস্তা দিতে। এখন নাব্যতা কমায় জাহাজ আর আসে না। আর ব্রিজটিও আর ভাগ হয় না। তবে, ঐতিহ্য একই রয়ে গিয়েছে। কলকাতা এলে সবাই এই হাওড়া ব্রিজকেই খোঁজেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: