বিল না মেটানোয় খাস কলকাতায় খদ্দেরকে নগ্ন করে ঘোরালো রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ

বিল বাকি, আদায় করতে এক ব্যক্তিকে নগ্ন করে ঘোরানো হল প্রকাশ্য রাজপথে। ঘটনাটি ঘটেছে খাস কলকাতায়। গত শনিবার দুপুরে এমন ঘটনার সাক্ষী থাকল কলকাতার চায়না টাউন। বেলেঘাটার এক বাসিন্দা দেবাশিস চক্রবর্তী গত শনিবার দুপুরে খেতে যান চায়না টাউনের একটি রেস্তোরায়। খাওয়া শেষে বিল দিতে গিয়ে দেখেন যে তার পকেটে টাকা নেই।

এরপরই ওই রেস্তোরা কর্তৃপক্ষ অন্য ক্রেতাদের সামনেই দেবাশিস বাবুর জামা কাপর খুলে তাকে নগ্ন করে ঘোরায় বলে অভিযোগ উঠেছে। এরপর দেবাশিস বাবুর জামা কাপড় কেড়ে নিয়ে কর্তৃপক্ষ তাকে রেস্তোরা থেকে বের করে দেয়। পরে সন্ধ্যেবেলা দেবাশিস বাবু থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ ওই রেস্তোরার মালিককে গ্রেপ্তার করেছে। কি ঘটেছিল শনিবার দুপুরে? পুলিশের একটি সূত্র থেকে জানা গিয়েছে বেলেঘাটার বাসিন্দা দেবাশিস বাবু চায়না টাউনের ওই রেস্তোরা ফুং ফার নিয়মিত কাস্টমার। ওই রেস্তোরার মালিকের নাম লিচুয়ান চ্যাঙ।

শনিবার দুপুরেও দেবাশিস বাবু অন্যান্য দিনের মত বেলেঘাটা থেকে ট্যাক্সি নিয়ে ওই রেস্তোরায় খেতে যান। খাওয়ার পর বিল মেটাতে গিয়ে দেবাশিস বাবু বুঝতে পারেন যে তিনি তার মানিব্যাগটি ফেলে এসেছেন বাড়িতে। দেবাশিস বাবু জানিয়েছেন যেহেতু তিনি ওই রেস্তোরাটির নিয়মিত খরিদ্দার ফলে তাকে চিনতে পারেন ওই রেস্তোরা কর্তৃপক্ষ। দেবাশিস বাবু তাদের সমস্ত ঘটনা জানিয়ে অনুরোধ করেন যে তিনি পরের দিন এসে বিল মিটিয়ে দেবেন। কিন্তু ওই রেস্তোরার মালিক লিচুয়ান এ কথায় রাজি হন নি।

 

শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে দেবাশিস বাবু লিচুয়ানকে বলেন তার সঙ্গে কাউকে পাঠালে তিনি বাড়ি থেকে টাকা দিয়ে দেবেন। কিন্তু তাতেও রাজি হন নি ওই হোটেলের মালিক। স্বভাবতই দেবাশিস বাবুর সঙ্গে বসচা বাধে রেস্তোরা কর্তৃপক্ষের। এরপরই লিচুয়ানের হুকুমে দেবাশিস বাবুর জামা কাপড় খুলে নেন রেস্তোরা কর্মচারীরা। তারা ওই অবস্থাতেই জোর করে তাকে সমস্ত রেস্তোরায় ঘোরানোর পর রেস্তোরা থেকে বাইরে বের করে দেন।

এরপরই ঘটনার কথা জানতে পেরে পুলিশ গিয়ে দেবাশিস বাবুকে উদ্ধার করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই রেস্তোরার এক কর্মী জানিয়েছেন, “ দেবাশিস বাবু এখানে প্রায়ই আসেন। এর আগে থেকেই রেস্তোরা কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু টাকা পেতেন তার কাছে। তাই মালিক সেই টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য জোর করেন। তবে ওকে নগ্ন করে ঘোরানো হয় নি”। প্রসঙ্গত এর আগেও দু’বার এই ধরনের ঘটনা ঘটে কলকাতায়। এর আগে পার্ক স্ট্রীটের এক রেস্তোরায় এক মহিলা তার গাড়ির চালককে নিয়ে ঢুকতে গেলে বাধা দিয়েছিল হোটেল কর্তৃপক্ষ।

পার্ক্সট্রিটের একটি রেস্তোরা মোকাম্বোতে নিজের চালক কে নিয়ে ঢুকতে গেলে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছিলেন ওই মহিলা। আবারও ফের একই ধরনের ঘটনা ঘটল কলকাতায়। বারবার এই ধরনের ঘটনায় মুখ পুড়ল কলকাতার। গোটা ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন সমাজের বিভিন্ন স্তরের বিশিষ্ট জনেরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: