চারচাকার সবচেয়ে ছোট ও সস্তার গাড়ি এবার ভারতের বাজারে

ভারতের গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বাজাজের উন্নত প্রযুক্তির তিন চাকার মালমাল পরিবহন যান এবং চার চাকার যাত্রী পরিবহন গাড়ি ‘কিউট’ বাজারে আনল রানার অটোমোবাইলস্ লিমিটেড। বাজাজের নতুন এসব যানবাহনে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) ও ডিজেল। ঢাকার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) এসব গাড়ির আনুষ্ঠানিক বাজারে আনার জন্য চলা অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

অনুষ্ঠানে বাজাজের জেনারেল ম্যানেজার (ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস) মনিষ শিং রাথোর বলেন, বাংলাদেশে বাজাজ এলপিজি এবং ডিজেল চালিত তিন চাকার যাত্রী ও মালবাহী যান প্রথমবারের মতো আনতে পেরে আমরা আনন্দিত। একই সাথে চার চাকার কিউটও রানার গ্রুপের মাধ্যমে বাংলাদেশের বাজারে আনতে পেরে আমরা গর্ববোধ করছি। কারণ এসব যানবাহন এদেশে নিরাপদ। আকর্ষণীয় জ্বালানি সাশ্রয়ী এবং পরিবেশের উপযোগী কিউট বাংলাদেশে পরিবহন খাতে বড় অবদান রাখবে। এছাড়া জনবসতিপূর্ণ নগরীর উপযোগী হবে। এরই মধ্যে এটি বিশ্বের ২০টি দেশে এই গাড়ি গুলোকে লঞ্চ করা হয়েছে।

First Drive – Bajaj Qute.- Priyank Chhapwale/Autocar India

সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, বাজাজ কিউট ওজনে সাধারণ ছোট গাড়ির অর্ধেকেরও কম। সংস্থার দাবি, গাড়িটির ওজন মাত্র ৪০০ কেজি। ঘণ্টায় সর্বোচ্চ গতি ৭০ কিমি। এক লিটার পেট্রলে যায় ৩৬ কিমি। এছাড়াও সিএনজিতে এই গাড়ি চালানো সম্ভব। প্রায় ১.৩৫ লক্ষ টাকায় গাড়িটি বিক্রি হচ্ছে ১৬টি দেশে। ফলে, ভারতের বাজারে এই গাড়ির দাম আরও সস্তা হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। এমনকি, লাখখানেকের মধ্যে ৪ সিটারের এই গাড়ি আমআদমির বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। সংস্থার দাবি, যেভাবে প্রত্যেকদিন গাড়ি বাড়ছে তাতে আগামিদিনে ছোট গাড়ির চাহিদা আরও বাড়বে। আর তা বাড়লে এই সমস্ত গাড়িই দেশবাসীর প্রথম পছন্দের হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়াও কিউট চলবে পেট্রোলে। এক লিটার পেট্রোলে ৩৫ কিলোমিটার পর্যন্ত চলবে কিউট। তাছাড়া থাকবে সিএনজির ব্যবস্থাও। তাই ক্রেতাদের কষ্ট করে সিএনজিতে গাড়ি কনভার্ট করতে হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: