বদলে গেলো অনলাইন কেনাকাটা করার নিয়ম, দেখে নিন কি দেখে অর্ডার দেবেন

অনলাইন কেনাকাটা বর্তমানে বেশি হয় সময় বাঁচানোর তাগিদে। সহজে দেখা যায়, আবার তার জন্য কোথাও যাওয়ার ব্যাপারও থাকে না, শুধু ইন্টারনেটই ভরসা। বিশ্বের প্রায় সকলেই এখন অনলাইন কেনাকাটার দাস। বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন, ই-বে ইত্যাদি থেকে কেনাকাটা করে থাকেন অনেকেই।

বিভিন্ন সময়ে কেনাকাটার ওপর ছাড়ের কথাও বলা থাকে এসব জায়গায়। কোনো পণ্য বস্তু ছাড় দিয়ে কত দামে পাওয়া যাবে তাও লেখা থাকে। কিন্তু এক্ষেত্রে জিনিসটির আসল দাম অনেক সময়ই উল্লেখ করা হয় না। মূল দাম না জানিয়ে ছাড়ের কথা বলাতে অনেক সময় ক্রেতারা বুঝতে পারেন না যে জিনিসটা আদৌ তাঁরা সস্তায় পাচ্ছেন কি না। অনেক ক্ষেত্রে দাম বাড়িয়ে তার ওপর ছাড় দেওয়া হয়। এর ফলে ক্রেতাদের ঠকানো হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আর এসব করা যাবে না বলে জানানো হয়েছে।

নতুন বছরে চালু করা হয়েছে অনলাইন কেনাকাটার নতুন নিয়ম। এখন থেকে প্রত্যেকটি পণ্যের সঙ্গে তার সর্বাধিক বিক্রয় মূল্য বা এমআরপি উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক। একইসঙ্গে পণ্যের এক্সপায়ারি ডেটও উল্লেখ করতে হবে। কেন্দ্রীয় ক্রেতা সুরক্ষা দফতর ২০১৭ সালে ২০১১ সালের কমোডিটি রুলসে সংশোধন আনে। এই সংশোধিত নিয়মে বলা হয়েছে ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে অনলাইনে কেনাকাটার বাজারেও প্রতিটি পণ্যের এমআরপি উল্লেখ করতে হবে। নতুন ব্যবস্থা চালু করার জন্য সব অনলাইন সংস্থাকে ছয় মাস সময় দেবে কেন্দ্রীয় সরকার।

অনলাইন বাজারের এই নিয়মে অসন্তুষ্ট সব সংস্থা গুলি। নতুন নিয়ম মেনে ইতিমধ্যেই কিছু পণ্যের এমআরপি উল্লেখ করেছে অ্যামাজন। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ফ্লিপকার্ট সহ অনেক সংস্থাই পণ্যের এমআরপি উল্লেখ করেনি।

আরো পড়ুন-দেখে এবং চিনে নিন হলিউডের সব থেকে হট দশ জন নায়িকাকে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: