ডিভোর্স চেয়ে আদালতে নব দম্পত্তি, নিজের খরচে হোটেলে পাঠালেন বিচারক

বিচ্ছেদ চাইতে আসা দম্পতিকে বিচারক তার নিজের খরচায় একসঙ্গে হোটেলে থাকার নির্দেশ দিলেন। সিনেমার মতো লাগলেও বাস্তবে ঘটনাটির সাক্ষি থাকল বীরভূমের জেলা আদালত।

সিউড়ির বাসিন্দা গৌতম দাস এবং অহনা গতবছর মার্চ মাসে বিয়ে করে। কিন্তু দিন কয়েক পর থেকেই দাম্পত্য কলহ শুরু হয়, যেটি গিয়ে পৌঁছয় আদালতের দোরগোড়ায়। বিচারক দুজনের থেকেই একই অভিযোগ শোনেন। এই ক্ষেত্রে সাধারণত দুপক্ষের কথা শুনে স্বামী-স্ত্রীকে আরও ৬ মাস একসঙ্গে থাকার সময় দেওয়া হয়। তাতে সমস্যা না মিটলে আইন নিজের পথ ধরে। এক্ষেত্রেও বিচারক পার্থসারথী সেন খানিক আদেশের সুরেই তাদের আরো ৬ মাস হোটেলে একসঙ্গে থাকার নির্দেশ দেন। কিন্তু গৌতম এতে রাজি হয় না, তার অর্থসংকট রয়েছে বলে বিচারককে জানায়। বিচারক পার্থসারথী বাবু তখন জানান, তিনি টাকা দেবেন, টাকা নিয়ে ভাবার তাদের কোনো প্রয়োজন নেই।

অগত্যা বিচারকের নির্দেশ মেনে হোটেলে যান ঐ দম্পতি। গৌতমবাবু আদালতকে জানিয়ে যান যে তিনি একসঙ্গেই থাকতে চান, কিন্তু সমস্যার কারণে তা করে উঠতে পারছেননা। স্ত্রী অহনাও স্বামী এবং তার পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনেছিল কিন্তু আপাতত সব ভুলে তারা হোটেলে একসঙ্গেই রয়েছে। বলা যার, বিচারকের দাওয়াই খানিক কাজে লেগেছে এই দম্পতির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: