ট্রেনের লাইনের ভিতর লুকিয়ে সাপ, মারাত্মক বিপদ (দেখুন ছবিতে)

ট্রেনের লাইন পেরিয়ে বাড়ি ফেরেন? সাবধান। ঘাপটি মেরে লুকিয়ে রয়েছে মৃত্যু। ট্রেনের লাইনের ভিতর লুকিয়ে থাকছে বিষাক্ত সাপ। রাজ্যে গত কয়েকটা বছরে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ট্রেনের লাইনের ভিতর লুকিয়ে থাকা বিষাক্ত সাপের কামড়ের ঘটনা ঘটেছে। মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে। সমস্যাটা এত মারাত্মক জায়গায় গিয়েছে যে রেল বিজ্ঞাপন দেওয়ার কথাও ভাবছে। সর্পকুলের থাকার দারুণ হয়েছে রেললাইনের ভিতর। দেখুন ছবিতে-

ধা-শহরের একটেরে এই পুরনো স্টেশনটাকে রেল-কোম্পানির ভুলের ফসল বলা যায়। প্রথম যখন রেলের লাইন পড়ে, কে জানে কোন বিবেচনায় ধু-ধু জলার মাঝখানে, খালের পাড়ে চাট্টিখানিক মাটি ফেলে দুটো লাইনের এধারে-ওধারে প্ল্যাটফর্ম ওভারব্রিজ আর ক’হাত দূরে একখানা দায়সারা অপেক্ষাঘর-সমেত টিকিট-কাউন্টার বসিয়ে দিয়ে চলে গিয়েছিল বাবুরা। এখানে জনবসতি নেই, বাজার নেই, অফিস-কাছারি নেই। বাসরাস্তা আছে, অনেকটা দূর— প্রায় দশ মিনিট আলের পথ। এই পাণ্ডববর্জিত জায়গায় ট্রেনের খদ্দের কোথা?

হ্যাঁ, খালের ও পারে গুটিকতক টালির চালা আছে। ওটা আসলে অন্য পঞ্চায়েত এলাকার শেষ প্রান্ত, খালটাই ও দিকের বর্ডার। খালের ওপর সাঁকো যদিও আছে একখানা, সেটা কাজে লাগে না বিশেষ। ওই এলাকার জীবনযাত্রা খালের ও পারেই চুকেবুকে যায় দিব্যি। আর, বেশির ভাগ গঞ্জ-মফস্‌সলেই পিছন দিকের খাল ঘেঁষে সার-দেওয়া যে-সমস্ত ঘুপচি চালাঘর থাকে, তাদের চরিত্র একই রকম হয় সচরাচর। এখানেও তাই-ই। ওই সব প্রান্তিক খুপরির যারা বাসিন্দে, তাদের এ-পারে আসার দরকার পড়ে খুব কম। কেননা, ও-পাশের হাটতলা-কুমোরপাড়া-পাটগুদাম-সুরকিকল-চোলাইঠেক পেরিয়ে অন্ধকারের চাদর মুড়ি দিয়ে যারা ওই সব খুপরিতে যাতায়াত করে, তারাই লেনাদেনা মিটিয়ে দেয় মোটের ওপর। সাঁকোর ওপর সাবধানী পদশব্দ… সে খুব ক্বচিৎ-কদাচিৎ ঘটে।

ট্রেন-কোম্পানিই সাঁকোটা বানিয়ে দিয়েছিল যেচে পড়ে। যদি যাতায়াত বাড়ে। কিছুই লাভ হয়নি। উলটে একটা সম্মিলিত আওয়াজ ওঠে জনগণের মধ্যে, যাতে ঠিক বাজার ঘেঁষে কোনও একটা জায়গায় নতুন একটা স্টেশন বসায় রেল। চিঠিচাপাটি আন্দোলন হয় খুব। তার পরেই সেই দাবি মেনে ফুটবল-মাঠের পাশে জনবহুল এলাকায় তৈরি হয় নয়া হল্ট। ক্রমশ চাপ বাড়ার ফলে ক’বছরের মধ্যে সেটাই হয়ে ওঠে আসল স্টেশন। যত যাত্রী-ওঠানামা হই-হট্টগোল সব সেইখানে। জলার মধ্যে পূর্বতন এই স্টেশন, পরিত্যক্ত পাগলের মতো তার ন্যাড়া প্লাটফর্ম, জীর্ণ ওভারব্রিজ আর শূন্য কাউন্টার নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে খালপাড় ঘেঁষে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: