পূজোর মুখে উৎসব উপলক্ষে ‘উৎসাহ ভাতা’ ঘোষনা করল রাজ্য সরকার

পূজোর আর দু সপ্তাহও বাকি নেই। আর এরমধ্যেই অস্থায়ী কর্মীদের জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে ঘোষনা করা হল উৎসব উপলক্ষে উৎসাহ ভাতা। গতবারের ৩৬০০ টাকা উৎসাহ ভাতা বাড়িয়ে এবার ৩৮০০ টাকা ঘোষনা করল মমতা ব্যানার্জ্জী সরকার। স্বভাবতই এ সিদ্ধান্তে খুশি অস্থায়ী কর্মীরা।

নিয়ম অনুযায়ী এতদিন গ্রামোন্নয়ন সংক্রান্ত প্রকল্পগুলির বাইরে অন্যান্য দপ্তরের অস্থায়ী কর্মীদের উৎসব উপলক্ষে এই বিশেষ ভাতা দেওয়া হত। এবং মাসিক বেতন ২৮০০০ টাকার কম হলে তবেই এই বিশেষ ভাতা পাওয়া যেত। তবে আজকের ঘোষনা অনুযায়ী রাজ্য সরকার এবার উৎসবের মরশুমে অন্যান্য দপ্তরের সাথে একশো দিনের কাজ, প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনা সহ গ্রামউন্নোয়ন বিভিন্ন প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত অস্থায়ী কর্মীদেরও এই ভাতায় নিয়ে এলেন। যেহেতু এসব প্রকল্পে রাজ্য ও কেন্দ্রের যৌথ ব্যয়ে চলে তাই এসব প্রকল্পে ব্যয়ের ১০ শতাংশ প্রশাসনিক খরচের জন্য রাজ্য সরকারকে দেয় কেন্দ্র। সূত্রের খবর ওই বরাদ্দ থেকেই এবার উৎসবের মুখে উৎসাহ ভাতা ঘোষনা করল রাজ্য সরকার।

পূজোর মুখে অবশ্যই এমন একটা খবরে খুশি অস্থায়ী কর্মীরা। এর আগে বিভিন্ন রাজ্য সরকারী দপ্তরের স্থায়ী নন গেজেটেড কর্মীদের জন্য ফেস্টিভাল এডভান্স ও বোনাসেও সামান্য বৃদ্ধি ঘোষনা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জ্জী। এবার অস্থায়ী কর্মীদের উৎসব ভাতায় বৃদ্ধি হওয়ায় কর্মী সংগঠনগুলিও খুশি। আর এবারের উৎসব উৎসাহ ভাতায় গ্রামোউন্নয়নে যুক্ত অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের যুক্ত করাতে সুখবরই বলা যায়।

তবে ইতিমধ্যেই বিরোধী কর্মী সংগঠন থেকে এহেন ঘোষনায় সাধুবাদ জানানো হলেও রাজ্য সরকারী কর্মীদের কয়েক দফা বকেয়া ডিএ এবং ষষ্ঠ বেতন কমিশন কার্যকরী করার কথা পুনরায় মনে করিয়ে দিয়েছে তারা।বিরোধী কর্মী সংগঠনের মতে যে পরিমান টাকা তৃণমূল সরকার পুজো ক্লাব ইত্যাদিতে ব্যয় করেন তাতে অনায়াসেই ডি এ দেওয়া যেত এবং ষষ্ঠ বেতন কমিশন কার্যকরী করা যেত। যার জন্য কয়েক লক্ষ সরকারী কর্মী পুজোর মুখে হা পিত্যেশ করে বসে আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: