কবে হবে ১৭ টি মেয়াদ শেষ হওয়া পুরসভার ভোট! কি বলছে রাজ্য সরকার?

১৭ টি পুরসভার ভোট কবে- নির্বাচন কমিশন সহ বিরোধী দলগুলির কাছে এটাই এখন বড় প্রশ্ন। আর প্রশ্ন ওঠার পেছনে দায়ী খোদ সরকারের গড়িমসি। বারবার জানতে চাওয়া হলেও রাজ্য সরকারের কাছ থেকে এখনো এ বিষয়ে কোন সবুজ সংকেত পায়নি রাজ্য নির্বাচন কমিশন। ফলে নির্বাচনের বিজ্ঞপ্তি কবে নাগাদ বেরোবে সেটাও এখন বিশ বাঁও জলে। রাজ্যের মোট ১৭ টি পুরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী তিন মাসের মধ্যে, এবং সেক্ষেত্রে আগামী নির্বাচন জুন মাসে করার জন্য রাজ্যকে একাধিকবার চিঠি পাঠিয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। কিন্তু রাজ্য সরকারের কাছ থেকে সে চিঠির কোন জবাব আজ অবধি আসেনি। আর এখানেই বিরোধীরা প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে পুরসভার নির্বাচনে রাজ্য সরকারের সদ্বিচ্ছা নিয়ে।

প্রসঙ্গত হাওড়া কৃষ্ণনগর সহ পাঁচ পুরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ডিসেম্বরে। যেখানে আগামী অক্টোবরে পানিহাটি, বর্ধমান, বালুরঘাট, ডায়মন্ড হারবার, হাবড়া-সহ ১১টি পুরসভার বোর্ডের মেয়াদ শেষ হবে। আর নভেম্বরে মেয়াদ ফুরোবে গুসকরা পুর বোর্ডের। ১৭টি পুরসভার পুরভোটের দিনক্ষণের পাশাপাশি পুরসভাগুলির ওয়ার্ড সংরক্ষণ এবং ডিলিমিটেশন নিয়ে রাজ্যের মত জানতে চেয়ে নির্বাচন কমিশন চিঠি দেয় রাজ্যকে যার জবাবে রাজ্য সরকার একপ্রকার কুলুপ এঁটেছে।

রাজনৈতিক মহলের দাবী পুরভোট নিয়ে সরকারের ধীরে চলো নীতির পেছনে রয়েছে পুরসভাগুলিতে বিরোধীদের প্রাধান্য বৃদ্ধি লোকসভা ভোটের আগে শাসক দল কে বেকায়দায় ফেলতে পারে। তবে বিরোধীদের বক্তব্য অবশ্য ভিন্ন। বিরোধীদের মতে তৃনমূলের অন্দরের দ্বন্ধই এর মূলে। ঠিক যে কারণে সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত ভোট বারবার পিছিয়েও শাসক দলের মুখ পুড়েছে ভোটে অবাধ অশান্তি প্রকাশ্যে এসে পড়ায়, পুরভোটের দিন ঘোষনা করলেই প্রার্থী পদের টিকিট নিয়ে একই নাটক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছে বিরোধী শিবির।

প্রদেশ কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি অধীর চৌধুরী এদিন বলেন পুরসভা ভোট হলে শাসক দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। অধীর চৌধুরী বলেন তৃণমূলের দশটা নেতার দশটা তালিকা৷ ফলে ভোট ঘোষণা হলেই প্রার্থী নিয়ে দ্বন্ধ শুরু হবে এবং পঞ্চায়েত ভোটের মতই অশান্ত হয়ে উঠবে রাজ্য৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: