আসুন দেখে নেওয়া যাক বিশ্বের কোন ১০টা দেশে ধর্ষনের সংখ্যা সব থেকে বেশি। চমকে যাবেন এর মধ্যে নিজের দেশের স্থান দেখে!

বর্তমান বিশ্বে জঘন্যতম এবং নিন্দনীয় অপরাধ হল ধর্ষন। আমরা মুখে যতই ফেমিনিসম নিয়ে কথা বলি দিনের শেষে মেয়েরা বরাবরই শোষিত এবং নির্যাতিত। আর মেয়েদের নির্যাতনের সব থেকে বড় উদাহরন এই ধর্ষন। আসুন দেখে নেওয়া যাক তথ্য অনুসারে বিশ্বের কোন দশটি দেশে এই অপরাধের সংখ্যা সর্বাধিক। দেখলে অবাক হয়ে যাবেন জার্মানি,আমেরিকা, ফ্রান্সের মতো প্রথম সারির দেশগুলি এই তালিকার উপরের দিকেই থাকবে।

১০. ইথিওপিয়া

পরিসংখযান অনুযায়ী ইথিওপিয়ান মেয়েদের উপর হওয়া অত্যাচার বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক। ইউনাইটেড নেশন এর দেওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী প্রায় ৬০ শতাংশ ইথিওপিয়ান মহিলাই শারীরিক নির্যাতনের শিকার। ইথিওপিয়াতে রেপ একটি খুবই গুরুত্বপুর্ন সমস্যা। রেপ ছারাও এই দেশে বিয়ের জন্যে কিডন্যাপও হয়ে থাকে, এমনপো রীপোর্ট আছে যে এই দেশে একটি ১১ বছরের মহিলাকে বিয়ের জন্যে অপহরন করা হয় এবং সে প্রেগন্যান্ট না হওয়া পর্যন্ত তার উপর ধর্ষন চলতে থাকে। ইথিওপিয়ার সেনাবাহিনীর উপরও অভিযগ রয়েছে সেই দেশের সাধারন মানুষদের ধর্ষন করার।

আরো পড়ুন-শুধু টাকার জন্যই অ্যাডাল্ট সিনেমায় অভিনয় করেছেন এমন প্রথম সারির বলিউড নায়িকারা

৯. শ্রীলঙ্কা

শ্রীলংকার সামরিক বাহিনীর উপরেই সব থেকে বেশি অভিযোগ সাধারন মানুষকে বিশেষত মেয়েদের ধর্ষন এবং নির্যাতনের। সিভিল ওয়ার শেষ হওয়ার ৪ বছর পরেও সামরিক বাহিনী তাদের নির্যাতন চালিয়ে গেছে। একটি সমীক্ষা অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার ১৪.৫ শতাংশ ছেলে তাদের জীবনে কখনও না কখনও রেপ করেছেন, ৪.৯ শতাংশ আগের বছরেই এই পাপ করেছেন। ২.৭ শতাংশ আবার অন্য একজন ছেলেকেই ধর্ষন করেছেন। ধর্ষকদের মধ্যে ৬৫ শতাংশের নিজের করা কাজের কোনও অনুশোচনা নেই এবং ১১ শতাংশ ৪ বা তার বেশি মেয়েকে ধর্ষন করেছেন। এই জন্যেই হয়তো শ্রীলংকাতে আত্মহত্যা হয় সব থেকে বেশী।

আরো পড়ুন-তারকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে সেক্স করেছেন বলে দাবি করা দশ অভিনেত্রী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: