দেখে নিন বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দশটি দেশকে, জানলে অবাক হবেন…

কি বলবেন, বিশ্ব অর্থায়ন? আমরা নিজেদেরকে গ্লোবাল ভিলেজের নাগরিক বলার থেকে আর মাত্র কয়েক কদম দূরে দাঁড়িয়ে আছি। বিশ্বের বহুদেশে নানা পরিকল্পনা নিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়ন করেই চলেছে। দু’দশক পর গোটা বিশ্বের চেহারাটাই বদলে যাবে। পিছিয়ে পড়া তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিও এখন অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকে নজর দিয়েছে। তবে, অর্থনৈতিক উন্নয়ন তখনই সম্ভব, যখন কোনও দেশের নাগরিক সমাজ দায়িত্ব নিয়ে এগিয়ে আসে। সরকার উপযুক্ত পরিকল্পনা গ্রহণ করে। আর বিশ্বের সবচেয়ে ধনীদেশগুলি এভাবেই নিজেদের জায়গা অর্জন করেছে। আজ আপনাদের বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দশটি দেশের কথা বলব।

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী শহর (সেরা দশ)-

১০. হংকং

এশিয়া মহাদেশের এই দেশটি এতোটাই ধনী যে দেশের জনসংখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ৬১ হাজার ২০ মার্কিন ডলার। ১৯৮৩ সাল থেকেই দেশটিতে মার্কিন ডলারের যাবতীয় লেনদেন চলে আসছে। ব্যবসাগত দিক থেকে হংকং বিশ্বের একাদশ বৃহত্তম বাণিজ্যিক বাজার। আবার বিভিন্ন দেশ থেকে আসা প্রবাসীদের কাছেও বেশ জনপ্রিয় হংকং। জীবনযাপনের জন্য খরচের দিক থেকে বিশ্বে অষ্টম স্থানে রয়েছে দেশটি। পর্যটনের দিক থেকেও অন্যতম আকর্ষণীয়। পর্যটনস্থল হিসেবে জনপ্রিয়তার দিক থেকে গোটা বিশ্বে এগারো নম্বরে রয়েছে হংকং।

৯. সুইৎজারল্যান্ড

The romantic village of Lavertezzo (545 metres) with its characteristic stone buildings is a good starting point for exploring the rural and unspoiled Valle Verzasca and its branch valleys. The Valle Verzasca is a rural and largely untouched valley with steep inclines and numerous waterfalls. The emerald-hued Verzasca River flows over bizarrely formed, smoothly polished rock through the narrow valley and has many natural rock pools and places to bathe.

পশ্চিম-মধ্য ইউরোপের এই সার্বভৌম রাষ্ট্র, ইউরোপীয় রাষ্ট্রসমূহের অন্তর্ভুক্ত। সুইস ফ্রাঙ্কে যাবতীয় লেনদেন করা হয়। সুইৎজারল্যান্ডের জনসংখ্যা ৮৩ লক্ষ হলেও মাথা পিছু গড় আয় ৬১ হাজার ৩৬০ মার্কিন ডলার। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে জন্য বিখ্যাত এই দেশকে ২০০৫ সালে সবচেয়ে সুখী শহরের তকমা দেওয়া হয়ছিল।

৮. আরব আমির শাহি

The Dubai Marina and Jumeirah Beach Residences (L) are seen from above on February 8, 2017 in Dubai, United Arab Emirates. Photo by Jumana Jolie for Getty Images

দক্ষিণ-পূর্ব আরব উপদ্বীপের সাতটি রাজ্যস্তরীয় অঞ্চলের একটি গোষ্ঠীসমূহ দেশ। জনসংখ্যা ৯৪ লক্ষের মতো। প্রধানত, আরবি ভাষাতেই কথা বলা হয় এখানে। আরব আমির শাহির রাজধানী দুবাই এবং দেশের সবচেয়ে বড় শহর। যাবতীয় লেনদেন আরব আমির শাহি দিরহামে করা হয়। কাঁচা তেলের ভাণ্ডারের দিক থেকে সপ্তম বৃহত্তম। ২০১৮ সালের সর্বশেষ গণনা অনুযায়ী অত্যন্ত ধনী এই দেশের মোট জনসংখ্যার মাথা পিছু গড় আয় ৬৮ হাজার ২৫০ মার্কিন ডলার।

৭. কুয়েত

Shuwaikh beach and skyline of Kuwait City, Kuwait, Middle East

পশ্চিম এশিয়ার এই দেশ তেলের জন্যই ধনী। রাষ্ট্রভাষা আরবি। কুয়েতি দিনারে যাবতীয় লেনদেন করা হয়। তৈলভাণ্ডার দিক থেকে ষষ্ঠ বৃহত্তম এই দেশের জনসংখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ৬৯ হাজার ৬৭০ মার্কিন ডলার। মানবোন্নয়ন সূচকের নিরিখে কুয়েত সবার শীর্ষে রয়েছে।

৬. নরওয়ে

People walk in the main street of Oslo, Karl Johans gate, on July 23, 2011, a day after the twin attacks on a youth camp and the government headquarters that killed 91 people in Norway’s deadliest post-war tragedy. Police said a 32-year-old “fundamentalist Christian” ethnic Norwegian whose political opinions were “to the right” was responsible for the twin attacks that killed some 84 young people attending a summer camp organised by the ruling Labour Party at the island of Utoeya, while seven were killed earlier as bomb ripped through the government quarter in the centre of the capital. AFP PHOTO / SCANPIX / Berit Roald
NORWAY OUT (Photo credit should read ROALD, BERIT/AFP/Getty Images)

নরওয়ের রাজধানীর নাম ওসলো। দেশের মুদ্রার নাম ক্রোন, এতেই যাবতীয় লেনদেন হয়। আয়ের মূল উৎস হল কাঁচা তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস। মধ্য প্রাচ্যের বাইরে তৈলভাণ্ডারের দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে এই দেশ। এছাড়া, করাতকল, সিফুড, জলশক্তি এবং পরিশুদ্ধ জল নরওয়ের আয়ের অন্যতম উৎস্য। ২০১৮ সালের সর্বশেষ গণণা বলছে, দেশের জনসংখ্যার মাথাপিছু আয় ৭০ হাজার ৫৯০ মার্কিন ডলার।

৫. আইসল্যান্ড

Grattan Bridge in the city centre of Dublin, Ireland

উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরে অবস্থিত এই দেশের জাতীয় মুদ্রার নাম ক্রোনা। দেশের রাজধানী এবং সবচেয়ে বড় শহর হলো রেইকজাভিক। অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের দিক থেকে বিশ্বে পঞ্চম এই দেশ। বিদ্যুৎ উৎপাদনের দিক থেকে বিশ্বে প্রথম স্থানে থাকা নরওয়ের মোট জনসখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ৭২ হাজার ৬৩০ মার্কিন ডলার।

৪. ব্রুনেই

Bandar Seri Begawan, Brunei

সার্বভৌম এই দেশের রাজধানীর নাম সেরি বেগাওয়ান। জাতীয় ভাষা মালয়। ১৯৯৯ থেকে ২০০৮ – এই পর্বে ব্রুনেই’তে বাণিজ্যের জোয়ার আসে এবং অর্থনৈতিক উন্নতি শিখরে পৌঁছোয়। মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ছিল ৫৬ শতাংশ। আর তাতেই ধনী হয়ে ওঠে দেশটি। দেশের নব্বই শতাংশ আয় কাঁচা তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস থেকে হয়। দেশের মোট জনসংখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ৭৬ হাজার ৬৩০ মার্কিন ডলার।

৩. সিঙ্গাপুর

Singapore Skyline at Marina Bay at Twilight

এশিয়ার এই দেশটি বেশ বিখ্যাত। প্রজাতান্ত্রিক সিঙ্গাপুর নামে সরকারিভাবে পরিচিত। যাবতীয় লেনদেন সিঙ্গাপুরিয়ান ডলারে হয়। বাণিজ্য এবং পরিবহন হাব হিসেবে সিঙ্গাপুর অত্যন্ত জনপ্রিয় বিশ্বের বাজারে। মোট অভ্যন্তরীণ আয়ের দিক থেকে সিঙ্গাপুর বিশ্বে তৃতীয় স্থানে রয়েছে, আর মানবোন্নয়নের সূচকের নিরিখে দেশটি পঞ্চম স্থানে। দেশের অর্থনীতি একেবারে মুক্ত, সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে অপরাধমূলক কাজকর্ম চূড়ান্তভাবে চলায় দেশের অর্থনীতিও ঊর্ধ্বমুখী। মোট জনসংখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ৯০ হাজার ৫৩০ মার্কিন ডলার।

২. লুক্সেমবর্গ

Large motorway bridge over valley in Luxembourg City.

পশ্চিম ইউরোপের এই সার্বভৌম রাষ্ট্রটি আয়তনের দিক থেকে অত্যন্ত ছোটো। অবাধ অর্থনীতির তালিকায় তেরো নম্বরে থাকা দেশটি জীবনশৈলীর দিক থেকে চার নম্বর রয়েছে সারা বিশ্বের মধ্যে। ছোটো রাষ্ট্র হলে কি হবে, দেশের জনসংখ্যার মাথা পিছু গড় আয় ১ লক্ষ ৯ হাজার ১০০ মার্কিন ডলার।

১. কাতার

DOHA, QATAR – JANUARY 07: The illuminate skyline of Doha is seen on January 7, 2014 in Doha, Qatar. (Photo by Lars Baron/Getty Images)

পশ্চিম এশিয়ার এই দেশটি বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে ধনী। উঁচু উঁচু অট্টালিকার জন্য বিখ্যাত কাতার। রাজধানীর নাম দোহা। রাষ্ট্রভাষা আরবি। তরল প্রাকৃতিক গ্যাস বিশ্বের বাজারে এই দেশ থেকেই বেশি পরিমাণে পৌঁছোয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় আয়কর অনেক কম কাতারে। ২০১৮ সালের সর্বশেষ রেকর্ড অনুযায়ী কাতারের মোট জনসংখ্যার মাথাপিছু গড় আয় ১ লক্ষ ২৪ হাজার ৯৩০ মার্কিন ডলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: