টলিউডের যে পাঁচজন সেলেবকে দলে নিতে মরিয়া বিজেপি

তৃণমূলকে রাজ্যের ক্ষমতা থেকে সরাতে মরিয়া বিজেপি। দিদি-কে কী করে ক্ষমতা থেকে সরানো যাবে এই বিষয়ে দিল্লি থেকে যে গবেষক দল বেশ কয়েক মাস ধরে কাজ করার পর গোপন রিপোর্ট জমা পড়েছে। যাতে পরিষ্কার বলা হয়েছে, বাংলার মানুষ সেলেব বা বিদ্বজনেদের দ্বারা ব্যাপক প্রভাবিত হয়। বামফ্রন্টকে সরিয়ে মমতার ক্ষমতায় আসার পিছনে সেলেবদের বড় ভূমিকা ছিল বলেই বিজেপি-র রিপোর্টে প্রকাশ। আর তাই এবার সেলেব, বুদ্ধিজীবীদের দলে পেতে ঝাঁপিয়েছে বিজেপি।

টলিউডে দিদিকে আর কিছুতেই খালি জমি ছাড়তে রাজি নয় বিজেপি। তাই টালিগঞ্জে ঘুটি সাজাতে তৈরি করেছে বিজেপি। রূপা গাঙ্গুলি, লকেট চ্যাটার্জি, জয় ব্যানার্জি, জর্জ বেকার, নিমু ভৌমিকদের পর আরও টলিউড শিল্পী-সেলেবদের বিজেপিতে দেখা যেতে পারে। আসুন দেখে নিই বিজেপি টলিউডের কোন সেলেবদের দলে নিতে মরিয়া–

৫) জিৎ (নায়ক)

দেবকে দলে নিয়ে তৃণমূল বাজিমাত করেছে। ঘাটালের মত বাম ঘাঁটিতে যেভাবে দেবের স্টারডাম কাজে লাগিয়ে হাসতে হাসতে বাজিমাত করেছিল তৃণমূল, সেভাবেই জিৎকে সাথী বানিয়ে বাজিমাত করতে চায় বিজেপি। সোশ্যাল মিডিয়া তো বটেই গ্রাম বাঙলায় জিৎয়ের জনপ্রিয়তা দেবকে টেক্কা দেয়। আর তাই জিৎকে পাশে পেলে পালে হাওয়া সম্ভব, অন্তত গ্রাম ও মফস্বলে। এমনটাই মনে করে বিজেপির একাংশ। তবে অতীতে জিৎকে পাশে পাওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিল তৃণমূল। জিৎ কিছুতেই রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়তে চান না। তার ওপর আবার ভেঙ্কটেশ ছেড়ে বেরিয়ে এসে নিজের প্রযোজনা সংস্থা খুলে বেশ ব্যস্ত জিৎ। বস-এর নায়ককে দেবের উদাহরণ দিয়ে কাছে টানতে পারে বিজেপি। দেব সাংসদ হওয়ার পর বিভিন্ন দিক থেকে সুবিধা হয়েছে। জিৎও যদি রাজনীতিতে মানে বিজেপি-তে যোগ দেন তাহলে নানা সুবিধা পেতে পারবেন, যাতে তাঁর সুবিধাই হবে। এমনই বোঝাতে চাইবে বিজেপি।

৪) কৌশিক সেন (অভিনেতা)

রাজ্যের হাতেগোণা কয়েকজন বুদ্ধিজীবীদের বিশ্বাসযোগ্যতা রয়েছে। তাদের মধ্যে নাট্যকার-অভিনেতা কৌশিক সেন একজন। কৌশিক বিকিয়ে যাওয়া বিশিষ্টজন নন। সুবোধ সরকার, অরিন্দম শীলদের মত যেদিকে গদি, সেদিকে ঝাঁপ মারির দলে পড়েন না। সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম পর্বে কৌশিক যেমন আন্দোলন করেছেন, প্রতিবাদ করেছেন, কিন্তু সুযোগ থাকলেও কখনও তৃণমূলে যাননি। আবার দিদি ক্ষমতায় আসার পর নানা ইস্যুতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। কৌশক সেনকে দলে নিয়ে তাই শহুরে মধ্যবিত্ত ও বুদ্ধিজীবীমহলে গ্রহণযোগ্য হতে চাইছে বিজেপি। অবশ্য কৌশিক বরাবর বামপন্থী রাজনীতিতে বিশ্বাসী। তা ছাড়া কৌশিক বিজেপি-র ধর্মীয় সঙ্কীর্ণ রাজনীতি নিয়েও বেশ সরব। তাই কৌশিককে আদৌও পাওয়া যাবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

৩) খরাজ গাঙ্গুলি (অভিনেতা)

খরাজ কখনও কোনওদিন রাজনীতির ছোঁয়া মারন না। কিন্তু বিজেপি-র বুদ্বিজীবী সেলের একাংশ মনে করে খরাজের রসবোধ, জ্ঞান যদি বিজেপিতে যোগ হয় তাহলে দারুণ হবে। তাই খরাজকে বাজিয়ে দেখতে পারে বিজেপি। যদিও তাঁকে পাওয়া নিয়ে সন্দেহ আছে।

২) কৌশিক গাঙ্গুলি (পরিচালক)

 

খুব বড় পরিচালক। সেভাবে রাজনীতির সঙ্গে থাকেন না। বিজেপি-র বুদ্ধিজীবী সেল কৌশিককে পাশে চায়। তবে কৌশিক বিজেপিকে পছন্দ করেন বলে শোনা যায়নি।

১) ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত (অভিনেত্রী)

রোজভ্যালি কাণ্ডে জড়িয়ে পড়ার পর ঋতুপর্ণা নিজে বিজেপিতে যোগ দিতে খোঁজখবর নেন। টলিউডের এখন এক নম্বর অভিনেত্রী ঋতুপর্ণাকে পাশে পেলে রাজ্যে ঝড় তোলা যাবে তাতে নিশ্চিত রাজ্য বিজেপি। গত বছর রাজ্য বিজেপি’র শীর্ষস্তরের এক নেতার সঙ্গে তিনি বৈঠক করায় অতএব দলেই জল্পনা শুরু হয়েছিল। রোজভ্যালি-কাণ্ডে তাপস পাল গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে চাপ বেড়েছে কলাকুশলীদের উপর। টলিউডের অনেকেই বিজেপি’র সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়েছেন। এমনকী, আলোচনার বসার জন্য তাঁদের তরফে বিজেপি নেতাদের কাছে প্রস্তাব গিয়েছে। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়া হয়েছে। তবে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে এখন দলে পেতে মরিয়া বিজেপি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: