সিপিএম যে দশটা কারণগুলির জন্য মুছে গেল, মিউজিয়ামে সিপিএমকে দেখতে যাওয়ার আগে জানুন

বাংলার পর ত্রিপুরাতেই শেষ হল সিপিএম সরকার। একমাত্র এখন কেরালাতেই আছে বাম সরকার। কিন্তু প্রতি পাঁচ বছরের সরকার বদলানোর কেরালার নিয়ম মেনে, সেখানেও তাদের জমানার শেষ হতে চলেছে। তাহলে! হ্যাঁ তা হলে! বাংলায় এখন কোনও রকমে তৃতীয় দল হওয়ার ক্ষমতা আছে সিপিএমের।

আগামী লোকসভা ভোটে একটা আসনেও তাদের জেতার সম্ভাবনা নেই। আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনেও কোনও জেলা পরিষদ গঠন করার ক্ষমতা সিপিএমের নেই। কিন্তু বছর পনেরো আগেও তো সবই ছিল সিপিএমের। সব, সব ভোটেই লালে লাল হত। কিন্তু সিপিএমের কেন এমন হাল! সিপিএম কেন মুছে গেল জানুন-

১০) নেতাদের ঔদ্ধত্য


বিমান বসু থেকে অনিল বসু, গৌতম দেব। দীপক সরকার থেকে বিনয় কোঙার- নিরুপম সেন। একের পর এক ভুল করে সিপিএম যখন গাড্ডায়। আম আদমিদের মধ্যে সিপিএমকে নিয়ে ক্ষোভ। তখন মানুষের ক্ষোভ আরও বেড়ে যায় এই সব নেতাদের কখনও অশালীন, কখনও আবার নেতাদের ঔদ্ধত্য দেখে মানুষ রেগে গিয়েছিল। আর মানুষ যদি কোনও দলের ওপর রেগে যায় তাহলে তারা এভাবেই মুছে যায়।

আলুর দাম কোথায় গিয়ে পৌঁছবে তার চেয়ে বড় জল্পনার বিষয় হল তৃণমূল প্রার্থীর জয়ের ব্যবধান শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে পৌঁছতে পারে৷ ভোট লুঠের পার্থিব সব রেকর্ড ভেঙে দিয়ে বহিষ্কৃত সিপিএম নেতা অনিল বসু যে শুধু নিজের নামটি গিনেস বুক অব রেকর্ডে তুলেছিলেন তাই নয়, বাকি ভারতবর্ষ এই আরামবাগকে চেনে ভোটের-চম্বল হিসেবেই৷ নিউটনের … পৌঁছে গোঘাটের পরে খানাকুলে ঘোরাঘুরি করতে করতে পাতুল নামের এক গ্রামের বাইরে দাঁড়িয়ে হোঁচট খেলাম৷ গাঁয়ে ঢোকার মুখেই একটা মাটির বাড়ির দেওয়ালে দেখলাম বেশ যত্ন করে লাগানো আছে সিপিএম প্রার্থীর ব্যানার৷ অনেকটা যেন পাক-অধিকৃত কাশ্মীরে গিয়ে তেরঙা ঝান্ডা উড়িয়ে দেওয়া৷ এমন ‘অর্বাচীন ঔদ্ধত্য’ দেখাচ্ছে কারা?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: