চিন-শিকাগোর পর এবার মুখ্যমন্ত্রীর দীঘা সফরও বাতিল হল, এবারের বাতিলের কারণটা একেবারে অন্য রকম

রাজ্য জুড়ে প্রবল বর্ষণ। নবান্ন থেকে পুরো পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে চান তিনি। তাই আগামীকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার দীঘা সফর বাতিল করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর আগে চিন সফর এবং শিকাগো সফর বাতিল হয়েছিল। সেই জন্য জল্পনা কম হয়নি। তবে এবারের প্রসঙ্গ সম্পূর্ণ আলাদা বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।প্রসঙ্গত, ১১ জুন হঠাৎ তাকে চিঠি দিয়ে ২৬ আগস্টের ওই অনুষ্ঠান বাতিল করার কথা জানায় শিকাগোর বিবেকানন্দ বেদান্ত সোসাইটি। তারপরই শুরু হয়েছে জল্পনা। নিছক কাকতালীয়, না অর্থবহ?

রাজনৈতিক মহলে ঘুরছে এই প্রশ্ন। কিন্তু কেন ?
সোসাইটির অধ্যক্ষ স্বামী ঈশাত্মানন্দ চিঠিতে মমতাকে লিখেছেন, রামকৃষ্ণ মিশনের সহ-সাধারণ সম্পাদক স্বামী অভিরামানন্দের আকস্মিক মৃত্যু (বেলুড়ে গঙ্গা থেকে ৮ জুন তাঁর দেহ মেলে) এবং অন্য কিছু ‘অপ্রত্যাশিত অসুবিধার’ জন্য অনুষ্ঠানটি বাতিল করা হচ্ছে। যদিও প্রেক্ষাগৃহ ভাড়া নেওয়া থেকে শুরু করে অন্য নানা প্রস্তুতি নেওয়া হয়ে গিয়েছিল বলে রামকৃষ্ণ মিশনের দাবি।
এখানেই বিষয়টি খুব ‘সরল’ বলে মনে করছে না রাজনৈতিক মহল। বিদেশ মন্ত্রক সূত্রে জানা যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীরও কিছু দিনের মধ্যেই শিকাগো যাওয়ার কথা। সেখানে বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর উপলক্ষেই মোদী অন্য একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বলে খবর।

ওখানকার কোনও একটি ‘হিন্দু’ সংগঠনের নামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর সফরের গুরুত্ব ‘বাড়াতে’ মুখ্যমন্ত্রীর এই সফর বাতিল করা হল বলে মনে করা হচ্ছে। মমতা সেখানে গেলে তাঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সংগঠিত করা হতে পারে বলেও অভিযোগ পাওয়া গিয়েছিল।
প্রসঙ্গত, কয়েকদিন আগেই বাতিল হয়ে গেল মুখ্যমন্ত্রীর চিন সফর। সাংবাদিক বৈঠক করে একথা জানালেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। এ দিন রাতেই কলকাতা থেকে চিনের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার কথা ছিল মমতা-সহ পশ্চিমবঙ্গ সরকারের প্রতিনিধি দলের। কিন্তু চিন সরকারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক ঘিরে অনিশ্চিয়তার জন্যই শেষ মুহূর্তে সফর বাতিল করা হল বলে নবান্নে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র।

কূটনৈতিক দিক থেকেও গুরুত্বপূর্ণ ছিল এই বৈঠক। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকেই চিন সরকারের সঙ্গে এই বৈঠক করার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে অনুরোধ করা হয়েছিল। এ দিন নবান্নে অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র জানান, এই বৈঠকের সূচি সম্পর্কে জানার জন্য বার বার ভারত সরকারের মাধ্যমে চিন সরকারের কাছে অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত চিন সরকারের পক্ষ থেকে ওই বৈঠক সম্পর্কে ভারত সরকার বা পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে কিছুই জানানো হয়নি। ফলে ধরেই নেওয়া হচ্ছে, এই বৈঠক নিয়ে চিনের কমিউনিস্ট সরকারের কোনও আগ্রহ নেই। ফলে সফরের মূল বৈঠকটি নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী চিন সফর বাতিল করেছেন বলে এ দিন জানান মুখ্যসচিব মলয় দে এবং রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র।
প্রসঙ্গত, রাজ্যে বিনিয়োগ টানার লক্ষ্যে শুক্রবার সপ্তাহব্যাপী সফরে চিনে যাওয়ার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রীর। ৩০ জুন চিন থেকে ফেরার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রীর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: