ভিডিও : দেখুন কীভাবে বারবার গ্রেম স্মিথকে আউট করে বানি-র শিকার করেছিলেন জাহির

ক্রিকেটে একজন ব্যাটসম্যান যখন একজন বোলারের বলে বারবার আউট হন তখন তাঁক বলে বানি। বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা স্যুইং বোলারদের অন্যতম জাহির খানের বানি যেমন ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাক্তন ওপেনোর তথা অধিনায়ক গ্রেম স্মিথ। জাহিরের স্যুইংয়ের কোনওদিনই হদিশ পাননি স্মিথ। অথচ বিশ্ব ক্রিকেটের সফল ব্যাটসম্যানদের নামের তালিকা তৈরি হলে গ্রেম স্মিথের নাম প্রথমের দিকেই আসবে। ম্যাকগ্রা থেকে ব্রেট লি। কুম্বলে থেকে মুরলী। সবাইকে অনায়াসে খেলে দেওয়া স্মিথ বারবার আটকে যেতেন জাহিরের বলে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্মিথকে রেকর্ড ১৩বার আউট করেন জাহির। জাহিরের বল ইনস্যুইং হয়ে ঢুকলেই স্মিথ নাকানিচোবানি খেতেন। খেলা ছাড়ার পর স্মিথ নিজেও বলেছেন, একমাত্র জাহিরের বল খেলতেই তিনি ভয় পেতেন।

৭টি টেস্ট খেলে জাহির খান ছ’বার আউট করেছেন গ্রেম স্মিথকে৷ বারবার বাঁ হাতি জাহিরের (৭ বার) বলে টেস্ট কেরিয়ারে বোকা বনতে হয়েছে স্মিথকে৷ টেস্টে জাহিরের চেয়ে বেশিবার স্মিথকে আউট করার কৃতিত্ব শুধু ক্রিস মার্টিনের (৮ বার)৷ তিনি অবশ্য দুটো বেশি টেস্ট খেলেছেন স্মিথদের বিরুদ্ধে৷ দু’জনেই চোট সারিয়ে ফিরেছেন, এই দু’জনের লড়াই নিয়ে চর্চায় দক্ষিণ আফ্রিকার প্রচারমাধ্যম৷ জাহির খানের রসিকতাটা দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক গ্রেম স্মিথ শোনেননি, এমন নয়৷ প্রচারমাধ্যমের সামনে স্মিথের সঙ্গে বহুচর্চিত লড়াইয়ের প্রসঙ্গ আসতে জাহির বলে দেন, ‘আমাকে তো শুধু বল হাতে মাঠে নামতে হবে!’দেখে নিন স্মিথকে বারবার বারবার আউট করা জাহিরের কিছু স্পেল–

 

দক্ষিণ আফ্রিকায় জাহির খানের সেই স্মরণীয় স্পেল
জাহির খান (৪/৮৮, জোহানেসবার্গ, ২০১৩)
দক্ষিণ আফ্রিকায় দুটি টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ জোহানেসবার্গে ছিল। একটি দুর্দান্ত ম্যাচ হয়েছিলো। দুই দলের ক্রিকেটাররা টান টান উত্তেজনার মাধ্যমে ম্যাচটি শেষ করেছিল। এই ম্যাচে উজ্জ্বল পারফরম্যানস প্রথম ইনিংসে ভারতীয় পেসার জাহির খানের দুর্দান্ত স্পেল ৪/৮৮।ভারত প্রথম ইনিংসে ২৮০ রানকরে। কোহলির ১১৯ রান ছাড়া আর প্রথম ইনিংসে আর কোনও ব্যাটসম্যানই পঞ্চাশের কোটায় পৌঁছতে পারেননি। এত অল্প রানের পুঁজি নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে জিততে গেলে ভাল বোলিংয়ের প্রয়োজন । দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ২৪৪ রানে শেষ হয়, যার পেছনে রয়েছে জাহির খানের দুর্দান্ত বোলিং। তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক গ্রেম স্মিথ ও ভারনন ফিল্যান্ডার এর গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নেন। ডু প্লেসিস ও মরনে মরকেল তাঁর অন্য দুই শিকার। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি মাত্র এক উইকেট লাভ করতে সক্ষম হন। এই টেস্ট ম্যাচটি ড্র হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: