গেইলের বিধ্বংসী ব্যাটিং নিয়ে অধিনায়ক অশ্বিনের বড় মন্তব্য!

মোহালির পিসিএ স্টেডিয়ামে ঘরের মাঠে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে কিংস ইলেভেনের প্রতিকূলতা ছিল একটাই। তারা কখনওই এর আগে আইপিএলে মোহালির মাঠে সানরাইজার্সকে হারাতে পারে নি। অন্যদিকে ব্যাটসম্যানদের স্বর্গ হিসেবে পরিচিত মোহালির পিচ এবং পরে ব্যাট করার দলই এখানে ম্যাচ জেতে এই তথ্য মাথায় রেখেও টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

এবং অশ্বিনের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমান করতে এগিয়ে আসেন ক্রিস্টোফার গেইলস। মূলত তার ব্যাটের দাপটেই সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বোলাররা মাঠের বাইরে উড়ে যায়। গেইলের সঙ্গে কে এল রাহুল এই ম্যাচে ওপেন করতে নামলেও মাত্র ১৮ রানে আউট হয়ে যান তিনি। কিন্তু এটা বহুবার প্রমানিত যে যেদিন গেইল ফর্মে থাকেন সেদিন আর কারও প্রয়োজন বোধ হয় না। মাত্র ৩৯ বলে নিজের হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর আরও ভয়ংকর হয়ে ওঠেন গেইল।

আগের থেকেও অনেক কম বলে তিনি দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরিও পূর্ণ করে ফেলেন। তাকে যোগ্য সহযোগিতা দেন করুণ নায়ার ৩১ রানের ইনিংস খেলে। সানরাইজার্সের সেরা বোলার রশিদ খানও গেইলের ব্যাটিং ফুলঝুড়িকে আটকাতে ব্যর্থ হন এবং তাকেও উপর্যুপরি মাঠের বাইরে পাঠান গেইল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে এদিন শুরুতেই বিপদে পরে হায়দ্রাবাদ। বীরেন্দ্র শ্রানের বলে কনুইতে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন হায়দ্রাবাদ ওপেনার শিখর ধবন।

আরেক ওপেনার ঋদ্ধিমান সাহাকেও তুলে নেন পাঞ্জাবের জোরে বোলার মোহিত শর্মা। এই ম্যাচে ব্যর্থ হন ইউসুফ পাঠানও। শেষে পর্যন্ত রান তাড়া করতে দলের দায়ভার কাঁধে তুলে নেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং মনীষ পান্ডে এই দুজনে মিলে ৫৬ বলে ৭৬ রানের ইনিংস খেলে দলের রানকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন। কিন্তু ট্রাইয়ের চালাকিতে উইলিয়ামসন আউট হয়ে যান, শেষে পর্যন্ত মনীশ পান্ডে হাফ সেঞ্চুরি করলেও দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যেতে পারেন নি। এবং এই ম্যাচ তারা ১৫ রানে হেরে যান। ম্যাচ শেষে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন বলেন,

“ আমি মনে করি এটা একটা কমপ্লিট পারফর্মেন্স। এটা অনেকটা সেরকমই ছিল, যখনা মরা টস জিতি এবং প্রথমে ব্যাট করি, এবং চেষ্টা করি আর রান আটকাতে সক্ষম হই। এটা আমরা সত্যিই ভালো করেছি। এটা অনেকটা দশ রান কম দেওয়ার মত। ওদের আটকানোর জন্য একটা সঠিক স্কোর দেওয়াটা অনেকটা এমন ছিল যে আমরা ভেবেছিলাম যে আমরা শেষপর্যন্ত এটা হ্যান্ডেল করতে পারব। এটা খুব ভাল একটা উইকেট ছিল।”

“ক্রিস দারুন ব্যাট করে ম্যাচটা ওদের থেকে অনেকটাই দূরে নিয়ে গিয়েছিল। আমরা কার বিরুদ্ধে বল করছি সেটাই বড় ব্যাপার ছিল। মোহিত বনাম ধবনের যুদ্ধটা খেটে গিয়েছিল, তাই আমরা সেভাবেই এগিয়েছিলাম। আজকের দর্শকদের উপস্থিতি সত্যি খুশি করার মত। এরকমটা আমরা মোহালিতে কখনওই দেখি নি। ওদের এন্টারটেইন করার মত এরকম প্লেয়ারদের উপস্থিতিই আজ ওদের মাঠে টেনে নিয়ে এসেছে। আজকে গেইল ব্যাক অফ এ লেংথ ডেলিভারিকেও মাঠের বাইরে ফেলে দিচ্ছিল — এটা পার্থক্য ওর সঙ্গে অন্যান্য ব্যাটসম্যানদের”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: