বিরাটের উইকেট নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে, বেন স্টোকস যা বললেন..

এজবাস্টনে সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচে সুবিধাজনক জায়গায় থেকেও পরপর উইকেট হারিয়ে ৩১ রানে হেরে গেল ভারতীয় দল। অধিনায়ক বিরাট কোহলির লড়াই ব্যর্থ হল। অন্য কোনও ব্যাটসম্যান তাঁর সঙ্গে সেভাবে লড়াই করতে পারলেন না। চতুর্থ দিন সকালে বেন স্টোকসের দাপটে ভারতের ব্যাটিং লাইনআপ ভেঙে পড়ল। ১৯৪ রানের টার্গেট তাড়া করতে গিয়ে ১৬২ রানে অলআউট হয়ে গেল ভারতীয় দল।


বিরাট কোহলি (৫১) ও শেষদিকে হার্দিক পান্ডিয়া (৩১) বাদে আর কোনও ব্যাটসম্যান সফল হতে পারেননি। উইকেটে এমন জুজ ছিল না যে চতুর্থ দিন শুরুতে খেলা যাচ্ছিল না। তবে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা ও ইংল্যান্ড বোলারদের দুরন্ত বোলিংয়ে কোহলি অ্যান্ড কোং হেরে বসল। এদিন ইংল্যান্ডের মাটিতে জেতা ততটা কঠিন ছিল না। কোহলি নিজে ক্রিজে ছিলেন। একটা পার্টনারশিপ দলকে জয় এনে দিতে পারত। তবে কেউ ন্যূনতম প্রতিরোধ গড়তে পারলেন না। ফলে ইংল্যান্ড পাঁচ টেস্টের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল। এত সুন্দর সুযোগ তৈরি করেও শেষ অবধি বিরাট ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে ব্যর্থ হলেন।


এদিন ইংল্যান্ডের হয়ে স্টোকস চারটি, জেমস অ্যান্ডারসন ও স্টুয়ার্ট ব্রড দু’টি করে এবং স্যাম কুরান ও আদিল রশিদ একটি করে উইকেট নেন। ম্যাচ শেষ ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট জয়ের কৃতিত্ব দিয়েছেন বোলারদের। দলের জয়ে বারবার নাম উঠে এসেছে ৪ উইকেট নেওয়া বেন স্টোকসের। দলের জ্যে অবদান রাখতে পেরে খুশি স্টোকস। বললেন,

‘এটা দারুণ। গতকাল আমরা দারুণ বল করেছিলাম। সেটাই ধরে রেখেছি আমরা। শ্যাম কুরান যেভাবে খেলল তা প্রশংসার দাবি রাখে। ওঁর ব্যাটিংই এই টেস্টের টার্নিং পয়েন্ট।’ সঙ্গে বিরাটের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, ‘প্রথম ইনিংসে দূর্দান্ত ব্যাট করেছে। সেইসময় বল সুইং হচ্ছিল। ও আড়াআড়ি এসে বলের পেছনে চলে যাচ্ছিল। যাতে সুইং ভাঙ্গার আগেই খেলতে পারে।’

সঙ্গে যোগ করেন,

‘প্রথম টেস্ট জিতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে আমরা ১-০ এগিয়ে আমরা চালকের আসনে। জেতার জন্য আমাদের ৫ উইকেট দরকার ছিল। আমরা জানতাম ওই কটা উইকেট তোলার ক্ষমতা আমাদের আছে। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে আমাদের যতটা সম্ভব আত্মবিশ্বাসী থাকতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: