এই ভারতীয় খেলোয়াড়কে একদিনের সেরা একাদশে ঠাঁই দিলেন ব্রায়ান লারা!

ভারতের অন্যান্য মাঠগুলোর থেকে লখনউয়ের মাঠ বেশ বড়। ৮০ মিটারেরও বেশি দূরে বাউন্ডারি। সেখানে ছয় মারতে গিয়ে লংয়ে ক্যাচ দিয়ে আউট হলেন শিখর ধাওয়ান, ঋষভ পন্থরা। কিন্তু রোহিত ‘হিটম্যান’ শর্মার জন্য কোনও বাউন্ডারিই যথেষ্ট বড় নয়। অনায়াসে পার করলেন ৮৩ মিটার, ৮৫ মিটার। ক্যারিবিয়ান বোলিং আক্রমণকে বেধড়ক ঠেঙিয়ে মাত্র ৬১ বলে করলেন ১১১ রান। মারলেন আটটা চার এবং সাতটা ছয়। সেই সঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে মোট রানে টপকে গেলেন বিরাট কোহলিকে। মোট সেঞ্চুরিতেও এখন সবার আগে তিনিই।

চারটি সেঞ্চুরি করে পেরিয়ে গেলেন কিউয়ি ব্যাটসম্যান কলিন মুনরোকে। ক্রিকেটের ক্ষুদ্রতম ফর্ম্যাটে মোট রানে এক নম্বরে আসতে তাঁকে আর মাত্র ৬৮ রান করতে হবে। তাহলেই টপকে যাবেন আর এক নিউজিল্যান্ডার মার্টিন গাপ্টিলকে। যে রকম ফর্মে রোহিতকে দেখা যাচ্ছে তাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সিরিজের শেষ ম্যাচে এই কীর্তি তিনি করে ফেলতেই পারেন।

লখনউয়ের এই বিধ্বংসী ইনিংসের পর সোশাল সাইটে চলছে রোহিত-বন্দনা। প্রশংসার ঢেউ আছড়ে পড়ছে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামে। তবে রোহিতের সেরা প্রাপ্তি অবশ্যই এক ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তির প্রশংসা। তিনি আর কেউ নন, ব্রায়ান লারা। ব্যাটিংকে শিল্পের চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া লারা রোহিতে মুগ্ধ। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে সর্বকালের অন্যতম সেরা হিসেবে ভারতীয় ওপেনারকে দেখছেন লারা। তিনি বলেছেন, ‘রানের কথা যদি ধরা হয় তবে ৫০ এবং ২০ ওভারের খেলায় রোহিতই এক নম্বর। কোনও সন্দেহই নেই যে ও আমার সেরা এগারোয় থাকবে। শুধু ভারতীয়দের মধ্যে নয়, গোটা পৃথিবীতেই।’

ব্রায়ান লারার মতো ক্রিকেটীয় কিংবদন্তি যখন এমন কথা বলেন তার গুরুত্ব নিয়ে নিঃসন্দেহে অপরিসীম। রোহিত শর্মা অবশ্যই লারার এই কথা শুনে আনন্দিত হবেন তবে ভারতীয় ওপেনারের কাছ থেকে এ বিষয়ে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। আপাতত সামনের ম্যাচে তাঁর লক্ষ্য ৬৮ রান করা, এবং সেদিকেই যে তাঁর সমস্ত ফোকাস তা বলাই বাহুল্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: