জাতিবিদ্বেষী মন্তব্য – এই ভারতীয় খেলোয়াড়কে ‘কুকুরের’ সাথে তুলনা করলেন এই ইংরেজ ক্রিকেটার!

ভারতীয় ক্রিকেট দলের ডানহাতি রিস্ট স্পিনার যুজবেন্দ্র চহলকে কেন্দ্র করে একটি ঘটন ঘটে লর্ডসে। আর তারপর থেকে তোলপাড় ক্রিকেট মহল। ভারতীয় ইনিংসের একেবারে শেষ লগ্নে হরিয়ানার স্পিন বোলারকে নিয়ে কমেন্টারি বক্সে এমন এক মন্তব্য করেন বসেন প্রাক্তন ইংরেজ অফ-স্পিনার, যা মোটেই শোভনীয় নয়। ভদ্রলোকের খেলাটা যখন ভদ্রলোকের মতো খেলা উচিত, তখন ধারাভাষ্য দিতে গিয়ে প্রাক্তন ক্রিকেটারেরও আচরণে সংযত হওয়া উচিত। তা না করে প্রাক্তন ইনিংশ স্পিনার গ্রেম সোয়ান জাতি বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করে বসেন চহলকে নিয়ে।

তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের কথা লর্ডসে। ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ৩২২ রান তোলার পর তা তাড়া করতে নেমে পিছিয়ে পড়ে ভারতীয় ক্রিকেট দল। ওই ম্যাচে ভারতীয় ইনিংসের ৪৯তম ওভারের কথা। চহল রান নিতে যাওয়ার পর, তাঁকে ফেরত পাঠান কুলদীপ যাদব। ৯ উইকেট হারিয়ে বসা কুলদীপ আর চহল তখন শেষ জুটি। থার্ডম্যান অঞ্চলে বলটা ঠেলে দেওয়ার পর সিঙ্গলের জন্য ছুটতে চেয়েছিলেন চহল। কিন্তু, ফিল্ডার কাছে চলায়, কুলদীপ না করেন। সে সময় নিজের উইকেট বাঁচাতে চহল ডাইভ মারেন। আর তা দেখার পরই সেই সময় মাঠে ধারাভাষ্যকার হিসেবে উপস্থিত থাকা সোয়ান কটু মন্তব্য করে বসেন। গোটা ক্রিকেট বিশ্বে তা সম্প্রচারিতও হয়।

সোয়ানের জাতি বিদ্বেষমূলক মন্তব্য –

”একেবারে টেইল-এন্ডারই বটে। কোনও ধারণাই নেয় ব্যাটহাতে কি করতে হয়। কুকুরের মতো গোলগোল করে ঘুরছে, যেন ফ্রিসবি (এক ধরণে গোলাকার খেলনা) ধরতে ছুটছে।”

স্বাভাবিকভাবেই সোয়ানের করা এই মন্তব্য একটুও রসিকতা মনে হয়নি ভারতীয় ক্রিকেট অনুরাগীদের। ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ড হতে পারে, কিন্তু তাদের ওই খেলাটা ভারতীয় উপমহাদেশের ক্রিকেটারদের কারণেই জনপ্রিয়তা পেয়ে এতোটা রমরমা বাজার নিয়ে টিকে আছে। ভারত থেকেই সবচেয়ে বেশি অর্থ পায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থাও। আর সেই কথাটা আবার বলতে হবে, ক্রিকেট যখন ভদ্রলোকের খেলা, আর সোয়ান বিশেষ করে যখন ইংরেজ, তখন তাঁর বাক্য ব্যবহার নিয়েও সংযত হওয়া উচিত।

তবে, এটাই প্রথম নয়। এর আগেও এরকম ঘটনা ঘটিয়েছেন কোনও ইংলিশ ক্রিকেটার। ২০১১ সালের কথা। মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে সেবার ভারতীয় দল ইংল্যান্ডে খেলতে এসে ফিল্ডিংয়ে খুব একটা ভালো পারফর্ম করতে পারেনি। আর তাই জন্য ভারতীয় দলের সেই সময়কার ক্রিকেটারদের গাধার সঙ্গে তুলনা করেছিলেন প্রাক্তন ইংরেজ অধিনায়ক নাসের হুসেন।

তবে, যাইহোক, লর্ডসে ভারতীয় দল হারলেও, টিমের পাশে দাঁড়িয়েছেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। উল্লেখ্য, ব্রিটিশ যুক্তরাষ্ট্রে পা রাখার পর ভারতীয় দল আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ ০-২ ব্যবধানে জেতার পর ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৩ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ ১-২ ব্যবধানে জেতে। তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজ হেডিংলি ম্যাচের আগের পর্যন্ত ১-১ ব্যবধানে দুই দিকেই ঝুঁকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: