আইপিএল ২০১৮ : অকশনের আগে নিজের বেস প্রাইস কমিয়ে নিলেন এই তারকা!

আইপিএল ক্রিকেট ২০১৮’র অকশনের জন্য নিজের বেস প্রাইস কমিয়ে নিলেন ভারতীয় দলের স্ট্রাইক বোলার ইশান্ত শর্মা। দিল্লির ফাস্ট বোলারটি তাঁর ভিত্তি দর দু’কোটি ভারতীয় মুদ্রা থেকে ৭৫ লক্ষ টাকাতে কমিয়ে নিয়েছেন। ২০১৮ মরশুমের ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ নির্ধারিত এপ্রিল-মে মাসেই হবে। তার আগে আগামী ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি বেঙ্গালুরুতে মেগা অকশন বসবে। এবার দল গঠনের জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি সর্বাধিক ৮০ কোটি টাকা খরচ করতে পারবে। যা গতবারের তুলনায় ১৪ লক্ষ টাকা বেশি।

ইশান্ত গত মরশুমের আইপিএল ক্রিকেট অকশনে অবিক্রিত থেকে গিয়েছিলেন। যদিও ২০১৭ আইপিএলে তাঁর খেলা আটকায়নি। তামিলনাড়ুর ক্রিকেটার মুরলি বিজয় হঠাৎই আহত হয়ে পড়েন। কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব বদলি হিসেবে ইশান্তকে কিনে নেয়। আইপিএলে খেলার সম্ভাবনা নেই জেনে দিল্লির ক্রিকেটারটি সেই সময় ইংল্যান্ডে কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে যাওয়ার জন্য তৈরিই হয়ে বসেছিলেন।

যাইহোক, আইপিএলে খেলার সুযোগ জুটলেও চূড়ান্ত হতাশ করেন। গোটা মরশুমে ইশান্তকে মাত্র ছ’টা ম্যাচেই মাঠে নামাতে পারে পাঞ্জাব টিম। উইকেট শূন্য থেকে মরশুম শেষ তো করেনই, তার সঙ্গে দরাজ হস্তে রান বিলিয়েছেন বিপক্ষ দলের ব্যাটসম্যানদের। আইপিএল ২০১৭’তে ইশান্তের ইকনমি রেট ছিল ৯.৯৪।

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব গত মরশুমে পরবর্তী রাউন্ডে যেতে ব্যর্থ হয়। লিগ পর্যায়ের শেষ ম্যাচটিও হেরে বসে। দলের মেন্টর এবং চিফ অফ ক্রিকেট অপারেশনস বীরেন্দ্র সেহওয়াগ বিদেশি ক্রিকেটারদের সমালোচনা করেন ভরাডুবির জন্য।

এদিকে, ইশান্ত এবার তাঁর বেস প্রাইস কমিয়ে নেওয়ায় অকশনে গতবারের মতো এবার আর তিনি অবিক্রিত থাকবেন না, এটা অন্তত নিশ্চিত। গতবার ২ কোটি ভিত্তি দর হাঁকানোতেও তিনি অবিক্রিত থেকে গিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য, ইশান্ত আইপিএল ক্রিকেটের সঙ্গে উদ্বোধনী মরশুম থেকেই জড়িত। জাতীয় দলের প্রতিশ্রুতিমান প্রতিভা হিসেবে ২০০৮ সালে এই ক্রোড়পতি টি-২০ ক্রিকেটে পা রাখেন। তবে, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিণত ও অভিজ্ঞ হয়ে ওঠার পরিবর্তে ফর্ম হারিয়েছেন ইশান্ত। কোনও টিমেই নিজের জায়গা পাকা করতে পারেননি। গত চার মরশুমে দিল্লির ফাস্ট বোলারটি মাত্র ১৭টি ম্যাচে খেলার সুযোগ পেয়েছেন।

আগামী মরশুমের জন্য আসন্ন আইপিএল অকশন নিয়ে ক্রিকেট সমালোচকরা আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছেন। কারণ, বর্তমানে, ভারতীয় ক্রিকেট টিম টেস্ট এবং সীমিত ওভারের দুই ফরম্যাটের জন্য আলাদা আলাদা স্পেশালিস্ট টিম গড়েছে। ফলে, অকশনেও তার প্রভাব পড়বে।shant Sh

ভারতীয় দলের হয়ে যাঁরা সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলেন, তাঁদেরই বেশি দামে বিক্রি হবেন। আর যাঁরা টেস্ট খেলেন, তাঁরা কম দাম পাবেন। আর তার কারণও আছে। যেমন ইশান্তকেই ধরা যাক, গত কয়েক বছরে জাতীয় দলের হয়ে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নেই দিল্লির ক্রিকেটারটি। ক্রমাগত টেস্ট খেলতে খেলতে সীমিত ওভারের ফরম্যাটে অচল হয়ে পড়েছেন। আর সেই কারণেই তিনি আইপিএলে টি-২০ ফরম্যাটে নিজেকে মানিয়ে নিতে ব্যর্থ হচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: