বিরাটের স্লেজিং মন্তব্য নিয়ে যা বললেন জনসন শুনলে অবাক হবেন…

ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ মানেই উত্তেজনা। স্লেজিং থেকে শুরু করে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়, কিছুই বাকি থাকে না। একটা সময় ছিল যখন ব্যাপারটা ছিল একতরফা। সিরিজ শুরুর আগে থেকেই নানারকম উত্তেজক মন্তব্য, খেলার মাঠে ভারতীয়দের কটু বাক্য, কিছুই বাদ দিত না অজিরা। সৌরভের অধিনায়কত্বের সময় থেকেই পালটা জবাব দেওয়া শুরু করল ভারত। অজি ক্যাপ্টেন স্টিভ ওয়াকে টসের জন্য পাঁচ মিনিট দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন বঙ্গসন্তান।

তারপর থেকে দু’ পক্ষের তরফেই স্লেজিং চালু রয়েছে। কিন্তু অজিরা এ ব্যাপারে সবসময়েই একটু অভদ্র প্রকৃতির বলে দুর্নাম আছে। আসন্ন অজি সিরিজের আগে যেমন পরিস্থিতি গরম করা শুরু করে দিলেন প্রাক্তন অজি ফাস্ট বোলার মিচেল জনসন। ভারত যখন এর আগেরবার অস্ট্রেলিয়া সফরে গেছিল তখন এই জনসনকেই বেদম ঠেঙিয়ে চারটে সেঞ্চুরি করেছিলেন বিরাট কোহলি। শুধু ব্যাট নয়, অজিদের স্লেজিংয়ের জবাব মুখে দিতেও কসুর করেননি। তাই এই সফরের আগে বিরাটকেই নিশানা করেছেন জনসন।

ক’দিন আগেই বিরাট জানিয়েছিলেন যে তারা নিজে থেকে কোনও রকম স্লেজিং আরম্ভ করবেন না। প্রতিপক্ষ শুরু করলে তবেই তারা জবাব দেবেন। একথা খানিকটা উড়িয়েই দিয়েছেন জনসন। বলেছেন, ‘আমি বিরাটের নো-সেন্ড অফের অপেক্ষায় থাকব।’ ইংল্যান্ড সিরিজে জো রুট আউট হওয়ার পর তাঁকে মাইক ড্রপ স্টাইলে প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখিয়েছিলেন কোহলি। যদিও তার আগে সেঞ্চুরি করে একই স্টাইলে সেলিব্রেশন করেছিলেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক।

কিছুদিন আগেই বিরাট এক বিবৃতিতে জানিয়েছিলেন, ‘আমরা সবসময়েই পালটা দেওয়াতে বিশ্বাসী। কোনও কিছু শুরু করি না। তাই যতক্ষণ না কিছু শুরু হচ্ছে আমাদের খেলায় ফোকাস রাখতে কোনও সমস্যা নেই।’ তবে শোনা যাচ্ছে দেশ থেকে নাকি হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করে কোহলিকে সংযত থাকতে বলা হয়েছে। তিনি যে ভারতের মতো একটি দেশের অধিনায়ক সে কথা মাথায় রাখতে বলা হয়েছে। এখন ক্যাঙ্গারুর দেশে আকচা-আকচি কতদূর গড়ায় সেটাই দেখার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: