ইংল্যান্ড সফর ২০১৮ : ‘এই রকম পিচ চাই’ পিচ কিউরেটরকে রবি শাস্ত্রী

টেস্ট সিরিজ শুরু হতে আর মাত্র দিন ছয়েকের অপেক্ষা। ভারতীয় ক্রিকেট দল কিন্তু একেবারেই বসে নেই। বরং ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লাল বলের ক্রিকেটে ভালো পারফর্ম করার উদ্দেশ্যে প্রস্তুতি ম্যাচে অংশ নিচ্ছে টিম ইন্ডিয়া। যদিও চার দিনের ম্যাচ তিনদিনে কমিয়ে আনা হয়েছে। বুধবার (২৫ জুলাই) থেকে শুরু হওয়া এই ম্যাচে বিরাট কোহলিদের প্রতিপক্ষ টম ওয়েস্টলির নেতৃত্বাধীন ইংলিশ কাউন্টি টিম এসেক্স। চেমসফোর্ডের কাউন্টি গ্রাউন্ডে হওয়া এই ম্যাচে ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সবুজ পিচে অভ্যর্থনা জানিয়েছে এসেক্স। ম্যাট কোলসের দাপটে শুরুতেই ভারতের জোড়া উইকেট জেমস ফস্টারের দস্তানায় জমা পড়ার পর অশনি সঙ্কেত দেখতে শুরু করেছিলেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। শিখর ধওয়ন ও চেতেশ্বর পূজারার প্রস্থানের পর অজিঙ্কা রাহানেও একই পথ ধরায় একটা সময় ভারত সত্যিই চাপে ছিল।

আসলে সবুজ পিচে ভারতীয় দলকে অভ্যর্থনা জানানোর কোনও কৃতিত্ব এসেক্সের নয়। পুরো কৃতিত্বটাই ভারতীয় দলের হেড কোচ রবি শাস্ত্রীর। তাঁর কথাতেই প্রস্তুতি ম্যাচে ঘাস রাখা হয় পিচে। শাস্ত্রী নিজেই সংবাদমাধ্যমকে এই কথা জানিয়েছেন। তিনি এটাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন, টেস্ট সিরিজে ভারতীয় দলকে যদি প্রতিটা ম্যাচে সবুজ উইকেটে খেলতে হয়, তাতে পিচ বা মাঠের পরিবেশ নিয়ে কোনওরকম অসন্তোষ প্রকাশ করবে না টিম ম্যানেজমেন্ট। এমনকি, কোনও ভারতীয় ক্রিকেটার বা সাপোর্ট স্টাফও কোনও রকম অজুহাত বা অসন্তোষ প্রকাশের পথে হাঁটবেন না মিডিয়ার সামনে। ভারত যে বিদেশের মাটিতে সমস্ত প্রতিকূলতাকে দূরে ঠেলে এগিয়ে যেতে চায় শাস্ত্রীর বক্তব্যে তা স্পষ্ট। অতীতে ভারতীয় দলের মধ্যে এই মেজাজটারই অভাব ছিল।

বিরাট কোহলিদের হেডস্যর বলছেন –

”ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের তরফে কোনও রকম অভিযোগ নেই কোনও কিছু নিয়ে। পুরো সফরটাতেই ভারতীয় দল কোনও রকম অজুহাত দেওয়ার পথে হাঁটবে না। পিচ বা ম্যাচের পরিবেশ নিয়ে কোনও কথাই বলা হবে না।”

শাস্ত্রী এরপর জানান, চেমসফোর্ডের কাউন্টি গ্রাউন্ডের গ্রাউন্ডসম্যান তাঁকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে পিচে ঘাস রাখা হবে, নাকি পুরো ছেঁটে ফেলা হবে?

”পিচটা কিরকম? ভালো। গ্রাউন্ডসম্যান আমাকে বলেছিলেন, পিচে অনেক ঘাস রয়েছে। তারপর আমাকে তিনি জিজ্ঞাসা করেন, ঘাস কি ছেঁটে ফেলতে হবে? তার উত্তরে আমি পরিষ্কার জানিয়ে দিই, না…একদম না। ওটা আপনারা ঠিক করবেন। আপনারা আমাদের যে ধরনের পরিবেশ, পরিস্থিতিতে খেলতে দেবেন, আমরা তাতেই খেলব। আমি তখন বলি ঘাস যেমন আছে তেমনই থাক। যদি পিচে ঘাস থেকে থাকে, যতটা আছে ততটাই থাক।”

”আমাদের চ্যালেঞ্জ হলো প্রতিপক্ষকে ধরাশায়ী করা। আমরা যেখানেই যাই না কেন গর্বের সঙ্গে পারফর্ম করতে চাই। আমরা বিশ্বের সেরা সফরকারী দল হতে চাই। তাই কোনও অসন্তোয় প্রকাশ করার কথা উঠলে, ভারতীয় দল সেই তালিকায় সবার শেষে থাকবে।”

প্রাথমিক ধাক্কাটা ভারত বেশ ভালোভাবেই সামলে ওঠে। ওপেনার মুরলি বিজয় লড়াকু ৫৩ রান করে যান। তারপর অধিনায়ক বিরাট (৬৮) ও লোকেশ রাহুল (৫৮) ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ার পর দিনেশ কার্তিকের ঝোড়ো ইনিংস (৮২*) ভারতকে প্রথম দিনের খেলা শেষে ভালো জায়গায় পৌঁছে দেয়।

বর্তমান ভারতীয় ক্রিকেট দল ইংল্যান্ড সফর করা আগেকার ভারতীয় দলগুলির থেকে একেবারে ভিন্নভাবে নিজেদের তুলে ধরতে যে চায়, ট্যুর ম্যাচে সবুজ উইকেটে খেলে সেটাই প্রমাণ করে দিয়েছে। ব্রিটিশ যুক্তরাষ্ট্রে আসার আগে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে এক ম্যাচের টেস্ট সিরিজেও ভারত একেবার পাটা উইকেটে খেলতে নামেনি। ভারতে যখন কোনও বিদশি দল (এশিয়ার বাইরের) খেলতে আসে তখন তারা উপমহাদেশের পিচ নিয়ে নানান অভিযোগ তোলে। রবি শাস্ত্রীর প্রশিক্ষণাধীনে ভারতীয় ক্রিকেট দল এই দৃষ্টিকোণ থেকে ভিন্ন হতে চায়। তাই ভারতীয় দলের প্রতিটি সদস্যকে তিনি কড়া নির্দেশ দিয়েছেন, কেউ যেন উপমহাদেশের বাইরে সফরে এসে পিচ ও পরিবেশ নিয়ে কোনও অসন্তোষ না প্রকাশ করেন। তাহলে, ভারতে যখন কোনও বিদেশি দল খেলতে আসবে, তারাও কোনওরকম অসন্তোষ দেখানোর পথে হাঁটবে না।

শাস্ত্রী বলছেন –

”আমার ধ্যারধারণা হলো সোজাসাপটা – আমি যদি তোমার দেশের মাটিতে পিচ ও পরিবেশ নিয়ে কোনও প্রশ্ন না তুলি, তাহলে তুমিও আমার দেশে এসে পিচ ও পরিবেশ নিয়ে কোনও প্রশ্ন তুলবে না।”

উল্লেখ্য, প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম দিন ভারত চেমসফোর্ডের কাউন্টি গ্রাউন্ডে ৮৪ ওভারে ৩২২/৬ রান তোলে স্কোর বোর্ডে।

ইংল্যান্ডে এখন গ্রীষ্মকাল চলছে। এবার তারপ্রবাহ চলায় শুকনো গরম বাড়ায় ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট চারদিনের ম্যাচ তিনদিনে কমিয়ে আনে অনুরোধ করে।

পয়লা অগস্ট থেকে ইংল্যান্ড ও ভারতের মধ্যে টেস্ট সিরিজ শুরু হবে। পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শেষ হচ্ছে ১১ সেপ্টেম্বর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: