জোড়া চোটের ধাক্কায় বেকায়দায় ভারত!

প্রথম টেস্ট জয়ের রেশ কাটতে না কাটতেই শুরু হতে চলেছে দ্বিতীয়টা। আগামিকাল পার্থ স্টেডিয়ামে সিরিজ জয়ের দিকে আর একধাপ এগিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর কোহলি ব্রিগেড। কিন্তু তার আগেই চোটের কবলে পড়ে ছিটকে যেতে হচ্ছে দুই ভারতীয় ক্রিকেটারকে। একজন বোলার এবং আরেকজন ব্যাটসম্যান। অ্যাডিলেড মাঠে পঞ্চম দিন ফিল্ডিং করতে গিয়ে পিঠে চোট পান রোহিত শর্মা। অন্যদিকে, অনুশীলনে তলপেটে ব্যথা অনুভব করছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। দুজনেই তাদের চোটের কারণে দ্বিতীয় টেস্ট থেকে বাদ পড়ে গেছেন।

অ্যাডিলেড টেস্টে ব্যাট হাতে ডাহা ব্যর্থ হয়েছিলেন রোহিত শর্মা। প্রথম ইনিংসে সেট হয়েও দায়িত্বজ্ঞানহীন শট খেলে উইকেট ছুড়ে দিয়ে এসেছিলেন। দ্বিতীয় ইনিংসে তো এসেই প্যাভিলিয়নে ফেরত যেতে হয়। টিম ম্যানেজমেন্ট খানিকটা ঝুঁকি নিয়েই হনুমা বিহারীকে বসিয়ে রোহিতকে খেলিয়েছিল। পার্থে তাই অটোম্যাটিক চয়েস হিসাবে দলে চ’ নম্বর জায়গাটা দখল করবেন হনুমা যেটা সবচেয়ে খুশি করবে সুনীল মনোহর গাভাসকরকে। তিনি এই সিরিজ শুরু হওয়ার আগে থেকেই হনুমা বিহারীকে খেলানোর পক্ষে সওয়াল করেছিলেন।

রোহিত শর্মার চোটে দলের ‘শেপ’ না বিগড়ালেও অশ্বিনের চোট কিন্তু অনেকরকম কম্বিনেশনের পথ খুলে দিচ্ছে। পার্থের পিচ বরাবরই খুব গতিময়। ফাস্ট বোলারদের পছন্দের জায়গা। সেক্ষেত্রে উমেশ যাদবকে খেলিয়ে চারজন ফাস্ট বোলার নামাতে পারে ভারত। স্পিনটা করে দেবেন হনুমা বিহারী। আবার উইকেটে ঘাস থাকলে সুইং বোলার ভুবনেশ্বর কুমার হবেন প্রথম পছন্দ। তবে সবচেয়ে বেশি খেলার সম্ভাবনা রবীন্দ্র জাদেজারই। স্পিন বোলিংয়ের সঙ্গে ব্যাটটাও করে দিতে পারবেন। কুলদীপকে এখনই টেস্টে নেওয়া হবে বলে মনে হয় না।

অ্যাডিলেড টেস্টের দুই ইনিংসেই দুর্দান্ত বোলিং করেছিলেন অশ্বিন। ম্যাচে তাঁর প্রাপ্তি ৬ উইকেট। একদিক থেক নাগাড়ে তাঁর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সৌজন্যেই অন্যদিক থেকে পেসাররা উইকেট পেয়ে গেছিলেন। জাদেজার ভালো নিয়ন্ত্রণ থাকলেও রিস্ট স্পিনার কুলদীপ যাদব মূলত উইকঁকা-টেকার, রানও দিয়ে ফেলেন অনেকটা, যেমন ইংল্যান্ডে হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: