ফাঁস হলো সানিয়া মির্জার সন্তানের নাগরিকত্ব! তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়ায়..

এবার সানিয়া শোয়েবের সদ্যজাত পুত্র সন্তানের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠে গেল পাক মিডিয়ায়। গত ৩০ শে অক্টোবর হায়দ্রাবাদের রেনবো হাসপাতালে পুত্র সন্তানের জন্ম দেন সানিয়া এবং তারকা পিতা মাতার সন্তান হওয়ায় অবশ্যই সোশাল মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচারও পায় খবরটি। কিন্তু এরই মাঝে পাক মিডিয়া প্রশ্ন তুলে দিয়েছে শোয়েব সানিয়ার পুত্র সন্তান কিছুতেই পাক নাগরিকত্ব পেতে পারেনা।

২০১০ সালে হায়দ্রাবাদী মুসলিম রীতি মেনে সানিয়া শোয়েবের বিয়ে হলেও সানিয়া ভারতীয় নাগরিকত্ব ছাড়েননি এবং টেনিস দুনিয়ায় তিনি ভারতীয় হিসেবেই প্রতিনিধিত্ব করেন। অন্যদিকে শোয়েব সানিয়া নিজেদের টাইটেলও একই রেখেছেন। এখন যেহেতু পাক অভিবাসন নীতি অনুযায়ী কোন ভারতীয় নাগরিক পাক নাগরিকত্ব পেতে পারেনা তাই সানিয়ার পুত্র সন্তানের ক্ষেত্রেও সে দেশের নাগরিকত্ব পাওয়া সম্ভব নয় বলেই মনে করে বিশেষজ্ঞ মহল। তবে ছেলের নাগরিকত্ব নিয়ে সেভাবে বিশেষ চিন্তিত নয় শোয়েব মালিক। তার কথায় তার ছেলে ভারতীয়ও হবেনা পাকিস্তানিও হবেনা।

বিশ্বের ১৯ টি দেশের সাথে পাকিস্তানের দ্বৈত নাগরিকত্ব চুক্তি থাকলেও সে তালিকায় নাম নেই ভারতের। ফলে পাক পাসপোর্ট নীতি অনুযায়ী ভারতীর নাগরিকত্ব ধরে রেখেছেন এমন কোন ব্যক্তির ভারতে জন্ম নেওয়া সন্তান পাকিস্তানের নাগরিকত্ব পাওয়ার যোগ্য নয়।

সানিয়া মির্জা ও শোয়েব মালিকের শিশু সন্তানের নাম রাখা হয়েছে ইজহান মির্জা-মালিক। এক্ষেত্রে পুত্রের নামকরনে পিতা মাতা দুজনের পদবী ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শোয়েব সানিয়া।

এদিকে ইজহানের বাবা পাকিস্তানি বলে অনেকের দাবি, সানিয়ার সন্তানের উপর অধিকার পাকিস্তানের। এই নিয়ে যে কারণে গত মাসেই মুখ খুলতে হয়েছিল শোয়েবকে। ভারত বা পাকিস্তান, এসব ভাবনা মাথায় নেই। এরই মধ্যে পাক সংবাদ মাধ্যম দাবি করা শুরু করেছে শোয়েব চাইলেও পাকিস্তানের নাগরিকত্ব জুটবে না ইজহানের কপালে। কারন সে ভারতীয় মায়ের গর্ভজাত। তবে ছেলের নাগরিকত্ব নিয়ে আপাতত সমস্ত বিতর্ক থেকেই দূরে থাকতে চাইছে শোয়েব সানিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: