নাম ফাঁস : এই বাংলাদেশী খেলোয়াড়ই ভেঙেছেন ড্রেসিংরুমের কাঁচ!

উচ্ছ্বাসের আতিশয্যে হুঁশ হারানো। জয়ের বহিঃপ্রকাশ! আনন্দের চোটে বাংলাদেশের অলরাউন্ডার সাকিব উল হাসান ভেঙে ফেলেন ড্রেসিং রুমের কাচ। অভিযোগ উঠেছে এমনই। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি নিউজ এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে এই তথ্য। নিজের কৃতকর্মের জন্য মাফ চেয়ে নিয়েছেন সাকিব। ঘটনাটি ঘটেছে শ্রীলংকায় বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমে। ত্রিদেশীয় সিরিজে স্বাগতিক লংকানদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জয়ের পর এ ঘটনা ঘটে।

Bangladesh’s Nurul Hasan, right, exchanges words with Sri Lanka’s skipper Thisara Perera during their second Twenty20 cricket match in Nidahas triangular series in Colombo, Sri Lanka, Friday, March 16, 2018. (AP Photo/Eranga Jayawardena)

প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শ্বাসরুদ্ধকর জয়ের পর বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দকৃত ড্রেসিং রুমের কাঁচ ভাঙা পাওয়া যায়। এ বিষয়ে গ্রাউন্ড স্টাফ এই বিষয়ে লঙ্কান বোর্ডের কাছে রিপোর্ট করেছে। তারপর হয়েছে তদন্ত। দেখা হয়েছে সিসিটিভি ফুটেজ। শনিবার দুপুর ১২টার মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে সাকিব ও নুরুল হাসানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে প্রেমাদাসার গ্রাউন্ড স্টাফেরা। বাংলাদেশ দলের ম্যাচ জয় উদযাপনের সময় এমনটি হয়েছে।


ঘটনায় আইসিসি কোড অফ কন্ডাক্টের ২.১.১ আর্টিকেল অনুযায়ী দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন সাকিব। দোষী সাব্যস্ত হয়য়াড়।নুরুল হাসান নামে আরও এক বাংলাদেশি খেলোয়াড়। দুইজনের ম্যাচ ফি-র ২৫ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে। ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে হারের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন সাকিব। সেখানে রীতিমতো লজ্জিত তিনি। বলা যায়, মাফ স্বীকার করে নিয়েছেন। সাকিব বলেছেন, ‘যা হয়েছে সেটা উচিৎ নয়। আমার শান্ত থাকা উচিৎ ছিল। আমি জয়ের আনন্দে উত্তেজিত হয়ে পড়েছিলাম। পরের বার থেকে আমি সচেতন থাকব’ এর সঙ্গে আরও যোগ করেছেন, ‘মাঠে আমরা একে ওপরের বন্ধু।

Bangladesh’s team members perform a nagging dance as they celebrate their team’s victory over Sri Lanka by 2 wickets during their second Twenty20 cricket match in Nidahas triangular series in Colombo, Sri Lanka, Friday, March 16, 2018. (AP Photo/Eranga Jayawardena)

বাংলাদেশ লিগেও আমরা একসঙ্গে খেলি। আমি তীব্রভাবে চাই দেশ জিতুক। ঘটনা যা ঘটেছে তা মাঠেই ফেলে এসেছি আমরা।’
প্রসঙ্গত, টি-টোয়েন্টিতে এক ওভারে মাত্র একটি বাউন্সার দেওয়া যায়। ইনিংসের শেষ ওভারে যখন টানটান উত্তেজনা, ঠিক ওই সময় পরপর দুটি বাউন্সকে আম্পায়ার বৈধতা ঘোষণা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে টাইগার শিবির। বাউন্ডারি লাইনে দাঁড়িয়ে গেল অধিনায়ক সাকিবসহ পুরো দল। সাকিব অভিযোগ তুললেন তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে। মাঠে মাহমুদউল্লাহও তখন ফিল্ড আম্পায়ারকে বিষয়টা বুঝানোর চেষ্টা করেছেন। কেউ কোন কথা কানে তুলছে না।

Bangladesh’s team members lift their batsman Mahmudullah as they celebrate their team’s victory over Sri Lanka by 2 wickets during their second Twenty20 cricket match in Nidahas triangular series in Colombo, Sri Lanka, Friday, March 16, 2018. (AP Photo/Eranga Jayawardena)

অথচ ভিডিও ফুটেজ বলছে, সেটা আসলেই নো বল ছিল। তাই এক পর্যায়ে সাকিব মাঠ থেকে চলে আসার জন্য দুই ব্যাটসম্যানকে ইশারা করেন। পরে কোচ ওয়ালশসহ বিসিবি কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে খেলা শুরু হয়। শেষ পর্যন্ত আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েই মাহমুদউল্লাহ’র বীরোচিত ইনিংসে ভর করে ১ বল বাকি থাকতেই ২ উইকেটে ম্যাচ জেতে বাংলাদেশ।
বাংলাদেশ বোর্ডের তরফে এই ঘটনার কথা স্বীকার না করলেও এমন ঘটনা বাঞ্ছনীয় নয় বলে মন্তব্য করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: