বিশ্বকাপ ইতিহাসে ম্যান অফ দা সিরিজের পুরস্কার পেয়েছেন যে দুজন ভারতীয়!

দেশের জার্সি গায়ে বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন দেখে না এমন ক্রিকেটার খুঁজলেও পাওয়া যাবে না। সবার এই আকাঙ্ক্ষা পূরণ হয় না। আর তার চেয়েও কম মানুষের সৌভাগ্য হয় বিশ্বকাপ জেতার। প্রবল ভাগ্যবান হলেই তবে বিশ্বকাপজয়ীর তকমা কপালে জোটে। এই দেখুন না, একদিনের ক্রিকেটে দশ হাজারের বেশি রান করেও খালি হাতে ফিরতে হয়েছে আমাদের সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে। ভাগ্যের পরিহাসে রানার্স হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে। আবার, বিরল কিছু খেলোয়াড় আছেন যারা শুধু কাপ জেতা নয়, বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারটাও জিতে নিয়েছেন।

লান্স ক্লুজনারের কথা মনে আছে? ১৯৯৯ বিশ্বকাপে একাই ২৫০ রান এবং ১৭টা উইকেট তুলে নিয়েছিলেন। নির্বাচিত হয়েছিলেন ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট। তাঁর দল কাপ জিততে পারেনি অবশ্য। শ্রীলঙ্কার বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান সনৎ জয়সুরিয়া ৯৬ সালের বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়। তাঁর দল সেবার কাপটাও জিতে নিয়েছিল। ভারতেরও এমন দু’জন আছেন যারা প্লেয়ার অব দ্য ওয়ার্ল্ড কাপ হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন। আসুন দেখে নিই-

যুবরাজ সিং:

ক্রিকেট দলগত খেলা। তা সত্ত্বেও ২০১১ বিশ্বকাপ জেতার পেছনে যার অবদান সবচেয়ে বেশি, তিনি যুবরাজ সিং। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং— তিন বিভাগেই দুরন্ত পারফর্ম্যান্স করে জিতে নিয়েছিলেন বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার। তিনিই প্রথম খেলোয়াড় যিনি এক বিশ্বকাপে ৩৫০ রান এবং ১৫টি উইকেটের মালিক। মোট চারটি খেলায় পেয়েছিলেন ম্যাচ-সেরার পুরস্কার। তাঁর সৌজন্যেই ২৮ বছর পর ভারত বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পায়।

শচীন তেন্ডুলকর:

ক্রিকেট নিয়ে কথা হবে আর এই ভদ্রলোকের নাম আসবে না এ হতেই পারে না। ২৫ বছরের ক্রিকেট জীবনে এমন কিছুই নেই যা তিনি জেতেননি বা করেননি। বিশ্বকাপের মঞ্চে তাঁরই সর্বোচ্চ রান। খেলেছেন সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বিশ্বকাপে (৬)। এর মধ্যে ২০০৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে ১১ ম্যাচে ৬৭৩ রান করেন তিনি। সৌরভের ভারত ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হার মানলেও কাপ-সেরার পুরস্কার শচীন ছাড়া কাউকে দেওয়া সম্ভব ছিল না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: