ব্যাঙ্ক বদল করতে গেলে আর প্রয়োজন নেই অ্যাকাউন্ট নম্বর বদলাবার!

পরিষেবা পছন্দ না হলে বা ব্যক্তিগত কোনও কারণে ব্যাঙ্ক বদল করতে হলে অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার দিন শেষ ৷ এবার থেকে অ্যাকাউন্ট এক রেখেই বদলে ফেলা যাবে ব্যাঙ্ক ৷ মোবাইল নম্বর পোর্টিবিলিটির মতোই এবার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট পোর্টিবিলিটির সুবিধা আনল ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ৷আরবিআই ডেপুটি গভর্নর এস এস মুন্দ্রা সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে এসে জানালেন, ইতিমধ্যেই গ্রাহকদের ব্যাঙ্কিং পরিষেবায় অ্যাকাউন্ট নম্বর না বদলেই ব্যাঙ্ক পাল্টানোর সুবিধা দিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ৷ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ব্যাঙ্কগুলিকে অ্যাকাউন্ট ট্রান্সফারের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৷

আরবিআই ডেপুটি গভর্নরের মতে, বর্তমানেব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলি আধার নম্বরের সঙ্গে যুক্ত থাকায় অ্যাকাউন্ট ট্রান্সফার প্রক্রিয়া অনেক সহজেই সম্ভবপর হবে ৷মোবাইল নম্বরের মতোই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টও শহর থেকে শহরে পোর্ট বা স্থানান্তর করার সুবিধা দেবে এই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট পোর্টাবিলিটি প্রকল্প। বাড়িতে বসেই অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে এই সুবিধা নিতে পারবেন গ্রাহকরা। এক ব্যাঙ্ক থেকে অন্য ব্যাঙ্কে অ্য়াকাউন্ট ট্রান্সফার নেওয়া যাবে সহজেই। ২০১৭ সালে RBI-এর তরফে ব্যাঙ্কগুলিকে এই প্রকল্পের বাস্তবাকি দিক খতিয়ে দেখতে বলা হয়। কিন্তু, সম্প্রতি এই প্রকল্প সম্পর্কে ধীরে চলো নীতি নিয়েছে শীর্ষ ব্যাঙ্ক।

অ্যাকাউন্ট নম্বর না পাল্টে ব্যাঙ্ক বদলানোর পরিষেবা চালু হলে গ্রাহকদের মধ্যে ব্যাঙ্ক বদলানোর প্রবণতা অনেক বেশি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাঙ্কগুলির মধ্যেও প্রতিযোগিতা অনেক বৃদ্ধি পাবে ৷ ফলে উন্নত হবে ব্যাঙ্কিং সার্ভিস ৷এই পরিষেবা চালু হলে আখেরে গ্রাহকেরাই অনেক বেশি লাভবান হবে ৷ বাসস্থান বা কর্মক্ষেত্র বদলালে পুরনো ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বন্ধ ও নতুন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলার সমস্যা থেকে এবার মুক্তি ৷জানা যাচ্ছে, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আধার নম্বর যোগ করা গ্রাহকদের জলদি এই পরিষেবা দিতে চায় কেন্দ্র। তা করতে UIDAI ও NPCI-এর সঙ্গে আলোচনাও শুরু করা হয়েছে।

ব্যাঙ্কবাজারের সিইও অধিল শেট্টি জানিয়েছেন, অ্যাকাউন্ট পোর্টিবিলিটির এই সুবিধে চালু করার আগে অ্যাকাউন্ট নম্বর তৈরির পদ্ধতি ও পরিকাঠামো সম্পূর্ণভাবে পাল্টে ফেলতে হবে ৷ এই পদ্ধতিটি সময়সাপেক্ষ এবং জটিল ৷ এছাড়া বিভিন্ন ব্যাঙ্কের KYC পদ্ধতি আলাদা ৷ ফলে জটিলতা বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে ৷তবে আরবিআইয়ের এই পদক্ষেপে অর্থনীতিবিদরা আশঙ্কা করছেন, এতে তহবিল তছরূপের প্রবণতা আরও বেড়ে যাবে ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: