‘Engaged’ হওয়ার গল্প শুনুন অঙ্কিতার নিজের মুখেই

অঙ্কিতা মজুমদার-

কী লিখি বলুন তো! লজ্জা লাগছে সিরিয়াসলি। তাও বলছি এই প্রথম। আসলে ‘মা-বাবা’র সিঙ্গল চাইল্ড হওয়ায় কবে বিয়ে করব’ – এই প্রশ্নটা শুনতে শুনতে আমি জাস্ট ম্যাড হয়ে যাচ্ছিলাম। শ্যুটিংয়ে গেলে শুনতে হচ্ছে, বাড়িতে তো বাদই দিলাম- সকালে ওঠা থেকে শুরু করে রাতে শুতে যাওয়ার সময়ও একই কথা। মা তো পুরো … যাক আর বললাম না! এতো গেল, কিন্তু বিয়ে করছিলাম না বলে আমাকে এক জন এরকম কথাও বলেছে, ‘ঠিক সময়ে বিয়ে না করলে এরকমই হয়’। কোনও কিছু হলেই এই কথাটা বলত। তিনি আমার কাছের বন্ধু। অবশ্য তিনিও এখনও বিয়ে করেননি। এই লেখার মাধ্যমে তাঁকে বললাম – Same to You. এবার আমি তোমায় বলব স্যার- ‘ঠিক সময়ে বিয়ে না করলে এরকমই হয়’। হা হা হা…

যাই হোক, এরকম অবস্থার মধ্যে দিয়ে যখন চলছিলাম তখন আমার বেস্ট ফ্রেন্ড ম্যাট্রিমনিয়্যাল সাইটে আমার নামে অ্যাকাউন্ট খুলে দেয়। যদিও প্রচুর কিছু ফিল আপ করতে হয়। আমার বেস্ট ফ্রেন্ড সেটা কমপ্লিট করতে পারেনি। তো ফাইনালি কয়েকদিন পরে সেটা কমপ্লিট করা হয়। কিন্তু তার পরও বিপদ, এতো এসএমএস পুরো পাগল হওয়ার জোগাড়। একবার ভেবেছিলাম বন্ধই করে দিই। পরে অবশ্য একজন রিলেশনসিপ ম্যানেজার দেখছিলেন, তাঁকেও আমার খুব একটা ভালো লাগেনি। পরে এক জন রিলেশনসিপ ম্যানেজার আমায় সৌমিত্র’র কথা জানায়। নাম – সৌমিত্র পাল, ব্যাঙ্গালুরুতে থাকেন, একটি সফটওয়্যার কোম্পানি আছে। আমি বলি ঠিক আছে। তারপর প্রোফাইল দেখলাম। বাড়িতে জানাই।

সৌমিত্র প্রথম ম্যাসেজ করে আমাকে। জানতে চায় কখন ফোন করবে, আমি যথারীতি শ্যুটিং শেষ করে কথা বলার জন্য জানিয়েছিলাম। তবে প্রথম ফোনটা ধরতে পারিনি। হা হা হা….তো এভাবে কথা বলা শুরু। অল্প অল্প কথা হয়। একদিন অনেকক্ষণ কথা হয়েছিল।

সেদিন ওর সম্পর্কে অনেকটাই বুঝতে পারি। তবে সবচেয়ে ভালো যেটা লেগেছিল সেটা সৌমিত্রর পোলাইট ব্যবহার, কখনও রাগতে দেখিনি। তা সত্ত্বেয় আমাকে যখন ও ‘আই লাভ ইউ’ বলেছিল তার প্রায় তিন মাস পর ইয়েস বলেছিলাম।

কারণ, একটাই ছিল – জীবনের সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্তের জন্য আরও একটু সময় নিয়েছিলাম। এর মধ্যে একদিন ও কলকাতায় এসেছিল ব্যাঙ্গালুরু থেকে। তখন আমি মেদিনীপুরে শো-তে ছিলাম। তারপর আইটিসি-তে দেখা করি। তো এভাবেই এগোয়। আমাদের এই সিদ্ধান্তে মা-বাবাও খুব হ্যাপি। আর কী…২৮ জানুয়ারি বিয়ে, রিসেপশন চলবে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

কয়েকদিন পরে মার্কেটিং শুরু করব। বিয়ে সাউথ কলকাতার একটি হোটেলে অ্যারেঞ্জ করার পরিকল্পনা আছে। আপানারাও আমাদের আশীর্বাদ করুন যেন সুখী হতে পারি। আর অবশ্যই সবাই খুব ভালো থাকবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: