ভিডিও ফাঁস, মার্কিন মহিলার অভিযোগ সত্য়ি হলে রোনাল্ডোর কত বছরের জেল হবে?

২০০৯ সাল লাস ভেগাসের হোটেলে ঠিক কী হয়েছিল? সত্যিই কি সেদিন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ধর্ষণ করেছিলেন! ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করছেন যে মার্কিন মহিলা তিনি কিন্তু বলছেন সব প্রমাণ তিনি গত 9 বছর ধরে জোগাড় করেছেন। তার এমন অভিযোগের পর হইচই পড়ে গেছে । আর এই বিষয়টি তুলে ধরেছে জার্মানের একটি ম্যাগাজিন।

জার্মান ম্যাগাজিন দের স্পিলগেলে প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে ক্যাথরিন মায়োরগা নামের ওই মহিলা অভিযোগ করে বলেন, ২০০৯ সালে লাস ভেগাসের পামস প্লেস হোটেলে তাকে ধর্ষণ করেন রোনাল্ডো। এত দিন পর বিষয়টি নিয়ে মুখ খেলার বিষয়ে ওই মহিলা জানান, বিষয়টি গোপন রাখার শর্তে রোনালদো তাকে তিন লাখ ৭৫ হাজার মার্কিন ডলার দিয়েছিলেন। এদিকে আজ সেই রাতের এক ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। যাতে দেখা যাচ্ছে রোনাল্ডো সেই মহিলার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় নাচছেন।

রোনাল্ডো অবশ্য ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। পর্তুগিজ তারকা জানিয়েছেন, ক্যাথলিন তার সঙ্গে স্বেচ্ছায় যৌনতায় লিপ্ত হয়েছিলেন। যে কারণে ধর্ষণের অভিযোগ ভিত্তিহীন। দুজনের সম্মতিতে ঘটনাটি ঘটেছিল। এমন অভিযোগের কারণে রোনাল্ডোর আইনজীবী ম্যাগাজিনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দেন।

মার্কিন আইন বলছেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে রোনাল্ডোকে ২০ বছর জেলে কাটাতে হবে। মানে ফুটবল তো দূরের কথা, রোনাল্ডোর অর্ধেক জীবনই মার্কিন কারাগারে কাটাতে হবে।

9 বছর আগের ধর্ষণ কাণ্ড নিয়ে অস্বস্তিত পরল পর্তুগালের মহাতারকা ফুটবলার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর। 2009 সালে লাস ভেগাসে এক হোটেলের ক্যাসিনোতে রোনাল্ডো তাঁক ধর্ষণ করেছিলেন বলে অভিযোগ জানিয়েছিলেন এক মার্কিন মহিলা। কিন্তু সেভাবে প্রমাণ না মেলায় রোনাল্ডডোর বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি মার্কিন পুলিস। 9 বছর বাদে সেই ধর্ষণ কাণ্ডে এক বড় প্রমাণ জোগাড় করে জুভেন্তাসের এই তারকার বিরুদ্ধে ফের ময়দানে নামলেন সেই মহিলা। লাস ভেগাস পুলিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মহিলা যে প্রমাণ তাদের হাতে তুলে দিয়েছেন, তাতে তাঁর বিরুদ্ধে ফের তদন্ত শুরু করা হচ্ছে। এমন খবরই প্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন মার্কিন সংবাদমাধ্যমে। যদিও এই খবর ভাইরলা হয়ে যাওয়ার পরেই রোনাল্ডো টুইটারে এই খবরকে ‘ফেক নিউজ’ ভুয়ো বা ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: