উচ্চতা অনুযায়ী একজন মানুষের ওজন ঠিক কত হওয়া উচিত? দেখুন

আজকালকার দিনে মাপঝোক করে খাওয়া যেমন সম্ভব নয়, তেমনই ঠিক সময় মেনে চলাও অসম্ভব। এদিক-ওদিক ঠিক হয়েই যায়। না চাইতেও অসময় করে ফেলতে হয়। কাজের চাপে অনেক সময় তো খাওয়াই হয় না। দেখা গেল, যখন ছুটি হলো, তখন একসঙ্গে অনেকটা খাবার খেয়ে ফেললেন বড্ড বেশি খিদের চোটে। আর তারপর শরীরটাই আর সঙ্গ দিতে চায় না। সামান্য বিগড়ে বসে। আর অম্বল, সে তো আজকালকার দিনে চিরসঙ্গী। যাঁর নেই, তিনি ভাগ্যবান।

না মেপে খাওয়ার সঙ্গে আবার শরীরের ওজন বাড়া-কমার বিষয়টি লুকিয়ে আছে। কি করে সেটাই বলছি। আপনি যখন অত্যাধিক খিদের চোটে খেতে শুরু করেন, তখন পরিমাণের তুলনায় বেশি খেয়ে ফেলেন। এজন্যই বলা হয়, চার বেলা অন্তত মেপে খেতে। ব্রেকফাস্ট অবশ্যই করা উচিত। সকালের খাবারটা ভারি হলেও অসুবিধে নেই, বাকি সময়টাতে ঠিক পুষিয়ে যাবে, টুকটাক মুখ চালাতে চালাতে কাজের ফাঁকে। খিদের চোটে যত বেশি খাবেন, তত বেশি শরীরে মেদ জমে। পেটে ততই চর্বি জমে। পেটে যত চর্বি জমে, বিপাক ক্রিয়া ততটাই ধীর গতিতে হয়। শরীর যত স্থুলকায় হয়ে থাকে, ততই নানান অসুখ শরীরে বাসা বাঁধতে থাকে। সব মারাত্মক অসুখই ছোটো থেকে শুরু হয়ে পরে বড় আকার ধারণ করে।

আবার অনেকে আছেন যাঁরা সিনেমার হিরোইনদের মতো চেহারা পাওয়ার জন্য খাওয়া-দাওয়া প্রায় বন্ধ করে দিয়ে বসে থাকেন। এটা মেয়েদের ক্ষেত্রেই বলছি। আয়নায় নিজের পেটের আয়তন দেখে নিজেকে ফিট বিচার করাটা ছাড়ুন। আগে ঠিক করুণ, নিজে সত্যি সত্যিই সুস্থ আছেন কি না! শরীরটা মাঝেমধ্যে বেগড়বাই করছে কি না, সেটা খেয়াল করুন। অত্যাধিক ওজন কম হলে, শরীরও দুর্বল হয়ে পড়ে। যে শরীর যত দুর্বল, রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতাও ততটা কম হয়। সুস্থ শরীরের চাবিকাঠি আমাদের উচ্চতার মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে। শুধু জানতে হবে, নিজের শারীরিক উচ্চতার অনুপাতে ওজনটা ঠিক আছে কি না! যদি না থাকে, তাহলে আজ থেকেই তা নির্দিষ্ট মাত্রায় আনা শুরু করে দিন।

কি করে মাপবেন, সেটাও বলে দিচ্ছি, কোথাও যেতে হবে না। এই প্রতিবেদনে দেওয়া তালিকায় নিজের সঠিক শারীরিক উচ্চতাটা খুঁজে নিয়ে ওজন কত হওয়া উচিত জেনে নিন। আর সময়ে সময়ে ওজনটা মাপান। ডায়েট অবশ্যই করবেন। তবে, তা ডাক্তার পরামর্শ মেনে। আর ওজন যদি সামান্য কম-বেশি থাকে, তাহলে ওটা নিজেই পারবেন। শুধু নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারে। তাও বলব, প্রয়োজন মনে হলে, ডাক্তার দেখিয়ে নিন। কারণ, আপনাকে সঠিক পথটা একজন ভালো নিউট্রিশনিস্টই দেখাতে পারবেন।

শরীরের উচ্চতা অনুযায়ী ওজন কতটা হওয়া উচিত, তার তালিকা নিচে দেওয়া হলো-

বয়স অনুপাতে মহিলাদের আদর্শ ওজন –

৪ ফুট ৬ ইঞ্চি : ২৮-৩৫ কেজি

৪ ফুট ৭ ইঞ্চি : ৩০-৩৭ কেজি

৪ ফুট ৮ ইঞ্চি : ৩২-৪০ কেজি

৪ ফুট ৯ ইঞ্চি : ৩৫-৪২ কেজি

৪ ফুট ১০ ইঞ্চি : ৩৬-৪৫ কেজি

৪ ফুট ১১ ইঞ্চি : ৩৯-৪৭ কেজি

৫ ফুট ০০ ইঞ্চি : ৪০-৫০ কেজি

৫ ফুট ০১ ইঞ্চি : ৪৩-৫২ কেজি

৫ ফুট ০২ ইঞ্চি : ৪৫-৫৫ কেজি

৫ ফুট ০৩ ইঞ্চি : ৪৭-৫৭ কেজি

৫ ফুট ০৪ ইঞ্চি : ৪৯-৬০ কেজি

৫ ফুট ০৫ ইঞ্চি : ৫১-৬২ কেজি

৫ ফুট ০৬ ইঞ্চি : ৫৩-৬৫ কেজি

৫ ফুট ০৭ ইঞ্চি : ৫৫-৬৭ কেজি

৫ ফুট ০৮ ইঞ্চি : ৫৭-৭০ কেজি

৫ ফুট ০৯ ইঞ্চি : ৫৯-৭২ কেজি

৫ ফুট ১০ ইঞ্চি : ৬১-৭৫ কেজি

৫ ফুট ১১ ইঞ্চি : ৬৩-৭৭ কেজি

৬ ফুট ০০ ইঞ্চি : ৬৫-৮০ কেজি

বয়স অনুপাতে পুরুষদের আদর্শ ওজন –

৪ ফুট ৬ ইঞ্চি : ২৮-৩৫ কেজি

৪ ফুট ৭ ইঞ্চি : ৩৩-৩৯ কেজি

৪ ফুট ৮ ইঞ্চি : ৩৩-৪০ কেজি

৪ ফুট ৯ ইঞ্চি : ৩৫-৪৪ কেজি

৪ ফুট ১০ ইঞ্চি : ৩৮-৪৬ কেজি

৪ ফুট ১১ ইঞ্চি : ৪০-৫০ কেজি

৫ ফুট ০০ ইঞ্চি : ৪৩-৫৩ কেজি

৫ ফুট ০১ ইঞ্চি : ৪৫-৫৫ কেজি

৫ ফুট ০২ ইঞ্চি : ৪৮-৫৯ কেজি

৫ ফুট ০৩ ইঞ্চি : ৫০-৬১ কেজি

৫ ফুট ০৪ ইঞ্চি : ৫৩-৬৫ কেজি

৫ ফুট ০৫ ইঞ্চি : ৫৫-৬৮ কেজি

৫ ফুট ০৬ ইঞ্চি : ৫৮-৭০ কেজি

৫ ফুট ০৭ ইঞ্চি : ৬০-৭৪ কেজি

৫ ফুট ০৮ ইঞ্চি : ৬৩-৭৬ কেজি

৫ ফুট ০৯ ইঞ্চি : ৬৫-৮০ কেজি

৫ ফুট ১০ ইঞ্চি : ৬৭-৮৩ কেজি

৫ ফুট ১১ ইঞ্চি : ৭০-৮৫ কেজি

৬ ফুট ০০ ইঞ্চি : ৭২-৮৯ কেজি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: