বাড়িতে রাখা ঘড়ি ঢেকে নিয়ে আসতে পারে দূর্ভাগ্য! রইল সমাধান

দেওয়াল গড়ি যে কোনও গৃহের এক অপিরহার্য বস্তু। মোবাইলের যুগেও এর গুরুত্ব যে কমেনি, তা আমরা সকলেই জানি। এখানেই শেষ নয়, বাস্তুশাস্ত্রের উপর লেখা একাধিক বইয়ের দিকে যদি নজর ফেরান, তাহলে জানতে পারবেন বাড়ির অন্দরে ঘড়ি রাখতে হলে বেশ কতগুলি নিয়ম মেনে চলা জরুরি। না হলে অর্থনৈতিক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা যেমন বাড়ে, তেমনি গৃহস্থের অন্দরে নেগেটিভ শক্তির প্রভাব বেড়ে যাওয়ার কারণে পারিবারিক কলহ বৃদ্ধি পায়।

ফলে সুখ-শান্তিও দূরে পালায়। এমনটা আপনার পরিবারের সঙ্গেও ঘটুক, যদি না চান, তাহলে এই প্রবন্ধে চোখ রাখতে ভুলবেন না যেন!

শোয়ার ঘরে ঘড়ি নয়: 

আলার্মের জন্য মোবাইল ব্যবহার করতেই পারেন। কিন্তু ভুলেও শোয়ার ঘরে ঘড়ি রাখবেন না যেন। কারণ বাস্তুশাস্ত্রে এমনটা করা বেজায় অশুভ বলে গণ্য করা হয়ে থাকে। প্রসঙ্গত, এক্ষেত্রে আরও একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। কী বিষয়? যদি দক্ষিণ দিকে মাথা করে শোন, তাহলে ঘড়ি রাখতে হবে উত্তর দিকের দেওয়ালে। মূল কথা যেখানে শোবেন, সেখান থেকে ঘড়ি যেন অনেক দূরে থাকে।

বন্ধ ঘড়ি নৈব নৈব চ: 

যেমনটা আগেও আলোচনা করা হয়েছে যে বাস্তুশাস্ত্রে এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে বাড়ির ভিতরে বন্ধ ঘড়ি থাকা বেজায় অশুভ। এমনটা হলে নেগেটিভ শক্তির প্রকোপ বাড়তে থাকে। ফলে নানাবিধ খারাপ ঘটনা ঘটার আশঙ্কা যায় বেড়ে। সেই সঙ্গে কর্মক্ষেত্রে নানাবিধ সমস্যাও মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। এমনটা আপনার সঙ্গেও ঘটুক যদি না চান, তাহলে ভুলেও বেশিদিন বন্ধ ঘড়ি গৃহস্থের অন্দরে রাখবেন না। প্রসঙ্গত, বাস্তু মতে এমনটাও বিশ্বাস করা হয় যে বাড়ির বাইরে ঘড়ি রাখা একেবারে উচিত নয়। কারণ এমনটা করা বেজায় অশুভ লক্ষণ হিসেবে বিবেচিত করা হয়ে থাকে।

সময়ের থেকে পিছিয়ে থাকা চলবে না:

বাড়ির ভিতরে থাকা প্রত্যেকটা ঘড়ি যেন ঠিক ঠিক টাইম দেয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কোনও ঘড়ি সময়ের থেকে আগে দৌড়ালে কোনও ক্ষতি নেই। কিন্তু ঘড়ি যদি স্লো হয়, তাহলেই কিন্তু বিপদ! কারণ এমনটা হলে খারাপ সময়ের খপ্পরে পরার সম্ভাবনা বাড়ে।

ভাঙা ঘড়ি: 

বাস্তুশাস্ত্র মতে ঘড়ির কাঁচ যদি ভেঙে যায়, তাহলে সেই ঘড়ি বাড়িতে রাখা উচিত নয়। কারণ ভাঙা কাঁচ অশুভ শক্তিকে ডেকে আনে। ফলে সুখ-শান্তি দূরে পালায়। তাই কোনও কারণে যদি কোনও ঘড়ি ভেঙে গিয়ে থাকে, তাহলে তা আজই বাড়ির বাইরে ফেলে দিন।

পরিষ্কার রাখতে হবে: 

ঘড়ির উপরে যাতে ধুলো না জমে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ ধুলোয় ঢাকা ঘড়ি শুভ শক্তির প্রভাবকে কমিয়ে দেয়। ফলে নানাবিধ খারাপ ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা বাড়তে থাকে। এই কারণেই প্রতিদিন ঘড়ি পরিষ্কার করার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।

দরজার সামনে ঘড়ি রাখবেন না: 

সদর দরজার একেবারে সমানে ঘড়ি রাখবেন না। এমনটা করলে খারাপ সময়ের আগমণ ঘঠতে সময় লাগবে না। ফলে সুখ-শান্তি দূরে পালায়।

চৌকো নয়তো গোল: 

ঘড়ি যখন কিনবেন খেয়াল রাখবেন ঘড়ির অবয়ব যেন চৌকো নয়তো গোল হয়। কারণ বাস্তু বিশেষজ্ঞদের মতে উদ্ভট শেপের ঘড়ি বাড়িতে রাখা একেবারেই উচিত নয়। কারণ ঘড়ি হল সমৃদ্ধির প্রতীক। তাই গোল বা চৌকো শেপের ঘড়ি না রাখলে পরিবারের কোনও সদস্যের সঙ্গে খারাপ কিছু ঘটে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: