মোদিকে গদিচ্যুত করতে কোন রাজ্যকে টার্গেট করতে হবে, জানালেন মমতা

সম্প্রতি উপনির্বাচনের দশটি রাজ্যে বিজেপিকে একেবারে ধরাশায়ী করে ছোট ছোট আঞ্চলিক দলগুলির নিজেদের জয় হাসিল করে নিয়েছে।বহু স্থানে জোটবদ্ধ হয়েও নিজেদের পতন রুখতে পারেনি মোদির দল।আঞ্চলিক দলগুলি কোথাও একা কোথাও দল বেঁধে নরেন্দ্র মোদীর দলকে হারিয়ে জয় তুলে নিয়েছে। আর সেক্ষেত্রে আঞ্চলিক দলগুলি সবচেয়ে ভালো ফলাফল করেছে। বলাবাহুল্য এই বিষয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী দলগুলিকে অসংখ্য বাহবাও দিয়েছেন এবং ভবিষ্যতে নির্বাচনে জয়ের রাস্তাও বাতলে দিয়েছেন তিনি।

উপনির্বাচনে জয়লাভের সবথেকে বড় উপাদান হল আঞ্চলিক শক্তির ভেদ এবং শুধুমাত্র এই কারণে আগামী লোকসভা নির্বাচনে সারা দেশে বিজেপিকে ভোটের গণনায় পিছিয়ে পড়তে হবে বলে মনে করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।তাঁর কথায়, আঞ্চলিক দলগুলির চরিত্র পাল্টেছে। এখন আর আঞ্চলিক দলগুলিকে দুর্বল ভাবলে বোকামি হবে।আগামী লোকসভা নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশে জয়ের পতাকা পতাকা উড়াতে পারলেই বিজেপিকে খুব ভালোভাবেই কেন্দ্রে আটকে দেওয়া যাবে এরকমটাই বলে মনে করছেন মমতা।উত্তরপ্রদেশে ৮০টি লোকসভা আসন রয়েছে। তার মধ্যে ৭১টি একা বিজেপি পেয়েছিল। পরে দুটি হারতে হয়েছে। এখন এতগুলি আসনের মধ্যে সিংহভাগ তাই বিজেপির হাত থেকে কেড়ে নিতে পারলেই খুব সহজেই দুর্বল করে দেওয়া যাবে এই দলটিকে কারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিক দিয়ে বিজেপি দুর্বল হয়ে যেতে বাধ্য।

উপনির্বাচনে আঞ্চলিক দলগুলি যেরকমভাবে কাজ করে গেছে আগামী লোকসভা নির্বাচনে সেরকমভাবে কাজ করে যাওয়াটাই কাম্য।উত্তরপ্রদেশে এমনিতেই বিভিন্ন দল যেরকম সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি এবং কংগ্রেস পারস্পরিক সাহায্য এবং সমঝোতার পথ ধরেই হাঁটছে বলাবাহুল্য যদি এই পারস্পরিক সমঝোতা বজায় থাকলে আগামী ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে খুব সহজেই পতন ঘটবে বিজেপির এরকমটাই মনে করছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরপ্রদেশ রাজ্যটিকে টার্গেট করতে হবে বিরোধী দলগুলিকে এবং পারস্পরিক সম্পর্ক জোরদার করে এগিয়ে যেতে হবে আগামী লোকসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখে তাহলেই মোদি দলের পতন হওয়া সম্ভব হবে বলে মনে করেন মমতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: