রাজ্যের এমন পাঁচ নেতা যাদের এক ডাকে ব্রিগেড ভরে গিয়েছে

২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে এনডিএ ১৭ শতাংশ ভোট পেয়েছিল। ইউপিএ পেয়েছিল ১০ শতাংশ। আর অন্যান্যরা পেয়েছিল ৭৩ শতাংশ ভোট। যার মধ্যে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস, সিপিএম সহ অন্যান্য বাম দলগুলি। শেষ লোকসভা ভোটে তৃণমূল কংগ্রেস সবচেয়ে বেশি ৩৪টি আসন পেয়েছিল ৪২টি আসনের মধ্যে। বিজেপি ২টি আসন পেয়েছিল। বিজেপি দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে। এরপরে যত ভোট হয়েছে তৃণমূল ও বিজেপি নিজেদের মতো করে শক্তি বৃদ্ধি করেছে। ২০১৯ সালের সংসদ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস একাই পেতে পারে ৪৪ শতাংশ ভোট শেয়ার। অন্যদিকে বিজেপির নেতৃত্বে এনডিএ পেতে পারে ২৪ শতাংশ ভোট শেয়ার। অন্যান্যরা পেতে পারে ১৭ শতাংশ আসন। যার মধ্যে রয়েছে কংগ্রেস, সিপিএমের মতো দল। তবে এ তো গেল রাজনৈতিক পরিসংখ্যান। কিন্তু এ রাজ্যে ব্রিগেড ভরানোর নেতা – নেত্রীদের নিয়ে আজকে আমাদের আলোচনা একবার দেখে নেওয়া যাক কারা ব্রিগেড ভরাতে পারেন বা পারতেন –

৫) সুভাষ চক্রবর্তী


একটা সময় সিপিএম ব্রিগেড সমাবেশ করলে সেই ব্রিগেড ভরানোর দায়িত্ব থাকত সিপিএমের প্রয়াত নেতা সুভাষ চক্রবর্তীর কাঁধে। এমনকী পরবর্তীকালে যা সুভাষ মডেল নামে পরিচিত হয়ে গিয়েছিল। অর্থাত বোঝাই যায় কী পরিমান জনপ্রিয়তা থাকলে একটা মানুষের কাঁধে এই দায়িত্ব বর্তাতো। এখন তিনি নেই, আর সিপিএম ব্রিগেড সমাবেশে মানুষ কত যাচ্ছেন তা খোদ সমর্থকদেরই সন্দেহ।

৪) বামফ্রন্টের সম্মিলিতি নেতাদের ডাক

২০১৫। বামফ্রন্ট সম্পাদক বিমান বসু দাবি করেছিলেন, ১০ লক্ষ মানুষের সমাবেশ হবে ময়দানে। সেই কথা সিপিএম রাখতে পারে কিনা সেটাই দেখার ছিল। ব্রিগেড সমাবেশে দলের প্রথম সারির সব নেতাই হাজির ছিলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করবেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। এছাড়া বক্তাদের তালিকায় ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাত, সীতারাম ইয়েচুরি, বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্ররা। সেই সময় ১০ লক্ষ না হলেও ব্রিগেডে মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

৩) প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি-সোমেন মিত্র

কংগ্রেস কবে ব্রিগেড সমাবেশ করছিল মনে আছে ? এ প্রশ্ন শুনে খোদ লজ্জা পাবেন দলীয় নেতৃত্বই। ভবিষ্যতে কংগ্রেস কবে ব্রিগেড সমাবেশ করবে সেটাই এখন কয়েক কোটি টাকার প্রশ্ন। তবে কংগ্রেসের সময় কালে ব্রিগেড ভরানোর জন্য প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি-সোমেন মিত্র যথেষ্টই ছিলেন। তাঁদের ডাকে কাতারে কাতারে মানুষ ব্রিগেড ভরিয়েছেন এক সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: