পিন ও প্যাটার্ন ভুলে গেলে, সহজেই আনলক করা যায় ফোন..জানুন কি ভাবে?

সেলফোনের প্রথম জেনেরেশনের কথা কারওরই ভোলার কথা নয়, যাঁরা ওই সময়টা পার করে এসেছেন। মোবাইল নামক একটা জিনিস বের হয়েছে। আর সেটা সঙ্গে রাখলে নাকি ঢাউস ল্যান্ড ফোনের কোনও দরকার নেই। সে সময় মোবাইল জিনিসটা লাগজারি ছিল। আর এখন সেটা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় জীবনযাপনের মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২জি ফোনের জায়গা কবে যে থ্রি জি ফোন নিল, আর তা যে কবে অচল হয়ে গেল স্মার্টফোনের ভিড়ে, তা অনেকেরই মনে নেই। তবে, হ্যাঁ, ভারতীয় বাজারে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের রমরমা শুরু ওই ২০১২ সাল থেকে। অবশ্য তার চার বছর আগে থেকেই অ্যান্ড্রয়েড সাপোর্টেড ফোনের যাত্রা শুরু।

তার আগের বছরই অ্যাপেলের আইফোন বের হয়। তাদের মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম আইওএস। আর সেই থেকেই প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াতে সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগল অন্যান্য মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলির সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে বাজারে আনে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম সাপোর্টেড স্মার্টফোন। বাজারে প্রথম অ্যান্ড্রয়েড ফোন কিন্তু আনে এইচটিসি। বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েডের পুরো মালিকানাই গুগলের হাতে।

দামে সহজলভ্য, দুই বা ততোধিক সিম কার্ড গুগল অ্যান্ড্রয়েড সাপোর্টেড ফোনে ব্যবহার করা যায় বলে, বিশ্বের বেশিরভাগ মানুষের কাছে এই ফোনই পছন্দের। তাছাড়া, ইচ্ছে মতো, ফোনের মেমোরিও বাড়ানো যায়। বর্তমানে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা তাঁদের ফোনের সঙ্গেই সবচেয়ে বেশি সময় কাটান। ফোন করতে হবে, স্মার্টফোনটা চাই। ইন্টারনেটে কিছু সার্চ করতে হবে, স্মার্টফোনটা রয়েছে তথ্য দেওয়ার জন্য, সোশ্যাল মিডিয়াতে আপডেট থাকতে হবে, তার জন্যও স্মার্টফোন রয়েছে। বলতে গেলে এখন স্মার্টফোন শুধুই স্মার্ট হয়নি, আমাদের সহযোগী হয়ে গিয়েছে সে। তাই কারও স্মার্টফোন থেকে আপনি তাঁর রোজকার জীবনযাপন সম্পর্কে সহজেই তথ্য পেয়ে যাবেন। ফলে সিকিওরড থাকা সবসময় জরুরি।

অ্যান্ড্রয়েড ফোনে লক করা সিস্টেম প্রথম থেকেই দেওয়া হয়ে আসছে। বেশিরভাগ মানুষ ফোন লক করার জন্য আবার প্যাটার্ন দিয়ে রাখেন আনলক করার অপশন হিসেবে। কারণ, পিন নম্বর মনে রাখতে পারেন না। এবার একটা ব্যাপার হলো, কোনও কারণে ভুলবশত যদি আপনি ভুল পিন নম্বর বা প্যাটার্ন অন্যমনষ্ক হয়ে দিয়ে দেন, তাহলে কিন্তু বিপত্তি। ফোন সঙ্গে সঙ্গে লক হয়ে যাবে। যতক্ষণ না মাথায় আসছে, কি ছিল! – ও ফোন আর ব্যবহারকারী খুলতে পারবেন না।

কিন্তু, যদি বলি হ্যাঁ, খোলা যায়…

পিন বা প্যাটার্ন ছাড়াই অ্যান্ড্রয়েড ফোন আনলক?

খুব সহজ উপায়। আপনার প্রিয় স্মার্টফোনের অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ম্যানেজার সাহায্য করবে এক্ষেত্রে। কোনও ফোন বা কম্পিউটার থেকে ওয়েব ব্রাউজার খুলুন। এবার https://myaccount.google.com/find-your-phone-guide – এ যান। আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসটি যে গুগুল অ্যাকাউন্ট দিয়ে লিঙ্কড সেটাতে লগইন করুন। লগ-ইন করে ডিভাইস আনলক করার অপশন খুঁজুন। দেখুন ‘লক ইওর ফোন’ অপশন রয়েছে। ওটাকে সিলেক্ট করে নতুন পিন বা প্যাটার্ন সেট করে নিন। এবার নতুন সেট করা পিন বা প্যাটার্ন ব্যবহার করে নিজের ফোনটিকে খুলে নিন। তবে, হ্যাঁ…আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটিতে যেন ওই সময় ইন্টারনেট চালু থাকে। তা নাহলে কোনওভাবেই সম্ভব হবে না।

ভয়েস আনলক…

এছাড়া আরও একটি সহজ উপায় রয়েছে। গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট দেখবেন আপনাকে ভয়েস আনলকের অপশন দেয়। ‘আনলক উইথ ভয়েস’ অপশনটি ব্যবহার করে আগে থেকে নিজের ভয়েস রেকর্ড করে রাখুন ফোন আনলক করার জন্য। পিন বা প্যাটার্ন ভুলে গেলে কাজে দেবে। ওই ফিচারটি অন থাকাকালীন ‘ওকে গুগুল’ বললেই সঙ্গে সঙ্গে আনলক হয়ে যাবে আপনার ফোন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: